পানির দাম বাড়ছে জুলাইয়ে

চলতি বছরের জুলাই মাস থেকে আবাসিক ও বাণিজ্যিক গ্রাহকদের জন্য পানির দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ঢাকা ওয়াসা। এক্ষেত্রে প্রতিটি ১ হাজার লিটার পানির দাম ১৫ টাকা ১৮ পয়সা বাড়বে। এছাড়া বাণিজ্যিক সংযোগের ক্ষেত্রে প্রতি ১ হাজার লিটার পানিতে ৪২ টাকা নির্ধারণ করেছে। বর্তমানে প্রতি ১ হাজার লিটার পানি আবাসিকে ১৪ টাকা ৪৬ পয়সা ও বাণিজ্যিক ভাবে ব্যবহৃত পানির ৪০ টাকা দিতে হচ্ছে।

ঢাকা ওয়াসার বোর্ড সভায় সোমবার (২৪ মে) এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। নতুন এ পানির দাম কার্যকর হবে পহেলা জুলাই থেকে। তীব্র সমালোচনা ও নানা বিতর্কের মুখে পড়লেও সংস্থাটির বর্তমান এমডি তাকসিম এ খান দায়িত্ব নেয়ার পর গত ১৩ বছরে ১৪তম বার পানির দাম বাড়ানো হচ্ছে।

২০০৯ সালে ঢাকা ওয়াসার এমডি হিসাবে দায়িত্ব নেন তাকসিম এ খান। গত বছরের অক্টোবরে ওয়াসার এমডি পদে ষষ্ঠবারের মতো নিয়োগ পান তাসকিন।

এদিকে করোনা মহামারির এই সময়ে পানির দাম বাড়ানোর হচ্ছে কেন জনতে চাইলে ঢাকা ওয়াসার একজন কর্মকর্তা বলেন, পানি উৎপাদন ব্যয় ও বিক্রয়মূল্যের মধ্যে অনেক ব্যবধান তৈরি হয়েছে। বর্তমানে প্রতি ১ হাজার লিটার পানির উৎপাদনে প্রায় ২৫ টাকা ব্যয় হচ্ছে।

সেখানে বিক্রি হচ্ছে ১৪ টাকা ৪৬ পয়সায়। ওয়াসার আইন ১৯৯৬–এর ২২ (২) ধারা অনুযায়ী সংস্থাটির বোর্ড ৫ শতাংশ হারে পানির দাম বাড়াতে পারে। এনিয়ে আজ একটি জাতীয় দৈনিক নিউজ প্রকাশ করেছে। আমরা এবিষয়ে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে প্রতিবাদ জানাবো। পানির দাম বৃদ্ধির বিষয়ে জানতে ঢাকা ওয়াসা বোর্ডের সদস্য ও ডিসিসিআইএর সাবেক ভাইস-প্রেসিডেন্ট ইমরান আহমেদ জানান, পানির দাম বৃদ্ধির বিষয়ে আমি কোনো মন্তব্য করবো না।

এবিষয়ে বক্তব্য দেবেন ওয়াসার চেয়ারম্যান। নিয়ে ওয়াসার চেয়ারম্যানের মুখপাত্র হিসেবে পরিচিত ঢাকা ওয়াসার ডেভোলাপম্যান্ট কমিটির ডিরেক্টর মো. আবুল কাশেম-এর মুঠোফোনে একাধিকবার কল ও খুদে বার্তা পাঠিয়েও তার কাছ থেকে কোনো সাড়া পাওয়া জায়নি।