২২ বছরের স্বামীকে ফেলে ৫৫ বছরের শশুরের সাথে পা;লি;য়ে বিয়ে!!

নিজের শ্বশুরকে নিয়ে ঢাকায় সংসার পেতেছেন ছেলের বউ। পঞ্চগড় জেলার আটোয়ারী উপজেলার তোড়েয়া ইউনিয়নের ছেপরাঝার গ্রামে এই চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে।

জানা গেছে, চলতি বছরের শুরুর দিকে বাবা নুর ইসলাম (৫৫) ছেলের পছন্দের মেয়ের সঙ্গে বিয়ে দেয় তার ছেলে বেলাল হোসেনের (২২)। এরপর জীবিকা নির্বাহের জন্য ছেলেকে কর্মস্থলে পাঠায় বাবা। এতে স্ত্রীকে রেখে প্রায়ই বাইরে থাকতে হতো ছেলের। তবে ছুটি পেলেই বাসায় আসতো ছেলে।

তবে এক সময় স্ত্রীর কাছে বেশ বিরক্তিকর হয়ে দাঁড়ায় স্বামী বেলাল হোসেন। তিনি বাসায় আসলেই তার সঙ্গে স্ত্রী খারাপ ব্যবহার করতেন বলে অভিযোগ করেছেন শাশুড়ি (ছেলের মা)।

তিনি বলেন, আমার ছেলে বাসায় আসলে বউমা প্রতিদিন বিছানায় শোয়ার আগে তার সঙ্গে খারাপ আচরণ করতো। তবে মাঝে মাঝে এও দেখা যেত, বউমাকে আমার স্বামীর সঙ্গে বেশ হাসাহাসি করতে। তখনতো আর এসব বুঝিনি। এখন বুঝতেছি, ঘটনা কী ছিল।

তবে একদিন আমার সন্দেহ হয়। পরে আমি স্বামীকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি বলতেন বউমা হলো নিজের মেয়ের মত। পরে এসব নিয়ে আমাকে মারধরও করেছেন। ওই সময় সম্মানের ভয়ে আমি বিষয়টি কাউকে জানাতে পারিনি।

তবে কিছুদিন আগে বউমা তার বাপের বাড়ি যাবার নাম করে আমার স্বামীকে নিয়ে পালিয়ে যায়। এখন শুনি, তারা ঢাকায় সংসার পেতেছে।

মেয়ের পরিবারিক সূত্রে জানা গেছে, খালার বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার উদ্দেশে তাদের মেয়ে ঘর থেকে বের হয়ে যায়। এটি আগে থেকে শ্বশুর-বউমার বুদ্ধি করে রাখা ছিল। পরিকল্পনা অনুসারে খালার বাড়িতে না গিয়ে তারা পালিয়ে বিয়ে করে ঢাকার উদ্দেশে চলে যায়।

ঘটনার কয়েকদিন পর অবশ্য মেয়ে নাকি তাদের ফোনে নিশ্চিত করে, সে তার শ্বশুরকে বিয়ে করে বর্তমানে ঢাকায় সংসার করছে।

এদিকে শ্বশুর-বউমার বিয়ের ঘটনায় এলাকার মানুষ ধিক্কার ও তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে। এলাকাবাসীসহ উভয় পক্ষের পরিবার শ্বশুর-বউমার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছে। যেন ভবিষ্যতে দ্বিতীয়বার এ ধরণের জঘন্যতম ঘটনার পুনরাবৃত্তি না হয়।