স্ত্রী’কে ফিরে পেতে শ্বশুরবাড়িতে অনশনে যুবক

ভা’রতের পশ্চিমবঙ্গে প্রে’মিক বা প্রে’মিকা ছেড়ে গেলে তার বাড়ির সামনে অবস্থান ধ’র্মঘট করার ঘটনা নতুন কিছু নয়। এবার স্ত্রী’কে আ’ট’কে রাখার অ’ভিযোগ তুলে শ্বশুরবাড়ির সামনে অবস্থান নিয়েছেন এক যুবক। নদীয়ার হরিণঘাটায় এ ঘটনা ঘটেছে।

সংবাদ প্রতিদিন জানায়, নদীয়ার বিরোহীপাড়ার ২৮ বছর বয়সী বাবু মল্লিক। সোনাখালি গ্রামের বাসিন্দা সংগীতা ঘোষের সঙ্গে দীর্ঘদিনের স’ম্পর্ক তার। তবে তাদের এ স’ম্পর্ক মেনে নেয়নি সংগীতার পরিবারের।

মল্লিক জানান, এরই মাঝে আগস্ট মাসে পরিবারকে না জানিয়েই বিয়ের রেজিস্ট্রি সেরে ফেলেন তারা। দুজনের মধ্যে হয় মালাবদলও। পরবর্তীতে সামাজিকভাবে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার ইচ্ছা থাকলেও সেটি হয়নি।

এদিকে কোনোভাবে সংগীতার পরিবারের সদস্যরা রেজিস্ট্রি বিয়ের বিষয়টা জেনে যান। এরপর থেকে সংগীতার উপর অ’ত্যাচার শুরু করে পরিবার। গৃহবন্দী করে রাখা হয় তাকে। প্রথম’দিকে লুকিয়ে বাবুকে ফোন করতেন ওই তরুণী। কিন্তু শেষ কিছুদিন ধরে তাও বন্ধ।

এমন পরিস্থিতিতে স্ত্রী’কে ফিরে পেতে অবস্থান ধ’র্মঘটের পথ বেছে নেন বাবু। সোমবার ভোরের আলো ফুটতেই প্ল্যাকার্ড, বেশ কিছু ছবি ও রেজিস্ট্রির নথিপত্র নিয়ে সোনাখালি গ্রামে শ্বশুরবাড়িতে হাজির হন তিনি। সেখানেই ধ’র্মঘটে বসেন তিনি।

তার প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল, ‘আমা’র বউকে ফিরিয়ে দাও।’ তিনি বলেন, ‘আমা’র বউকে আ’ট’কে রেখে অ’ত্যাচার করা হচ্ছে। ওকে ভুল বোঝানো হচ্ছে।’

যদিও মল্লিকের অ’ভিযোগ মানতে চাননি সংগীতার পরিবারের সদস্যরা। তারা বলেন, ‘মে’য়ে আত্মহ’ত্যার চেষ্টা করেছিল। সেই কারণেই তার মন ভালো করতে কিছুদিনের জন্য অন্যত্র পাঠানো হয়েছে।’