ছাত্র ইউনিয়নের ২ নেতাকে তুলে নিয়ে নি’র্যাতনের অ’ভিযোগ পু’লিশের বি’রুদ্ধে

ধ*র্ষ ণের প্রতিবাদে রাজধানীর বেইলি রোডে দেয়ালে গ্রাফিতি আঁকার সময় ছাত্র ইউনিয়ন দুই নেতাকে থা’নায় নিয়ে গিয়ে নি’র্যাতনের অ’ভিযোগ উঠেছে।

কাল রাত আড়াইটার দিকে ভিকারুননিসা নূন স্কুলের সামনের গ্রাফিতি আঁকার সময় ছাত্র ইউনিয়নের ঢাকা মহানগর সংসদের সভাপতি জওহরলাল রায় এবং শিক্ষা ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক সাদাত মাহমুদকে কয়েকজন পু’লিশ সদস্য জো’রপূর্বক তুলে নিয়ে যায়।

বামপন্থী ছাত্র সংগঠনটির সভাপতি অনিক রায় বলেন, ‘আমাদের দুই কর্মী ধ*র্ষ ণের প্রতিবাদে গ্রাফিতি আঁকছিলেন। টহল পু’লিশের একটি দল সেখানে গিয়ে তাদের আঁকা বন্ধ করতে বলে।’

তিনি বলেন, ‘কর্মীরা আঁকা বন্ধ না করায়, তাদের মধ্যে বাকবিতণ্ডা শুরু হয় ও এক পর্যায়ে পু’লিশ সদস্যরা তাদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে।’

নেতাকর্মীরা পু’লিশের এমন আচরণের প্রতিবাদ করে এবং পুরো ঘটনাটি সাদাত ক্যামেরার সামনে বলা শুরু করলে পু’লিশ সদস্যরা তাকে মা’রধর করে বলে অ’ভিযোগ করেন অনিক রায়। পরে সাদাতসহ তাকে রমনা থা’নায় নিয়ে যাওয়া হয়।

অ’ভিযোগ করে তিনি আরও বলেন, ‘পু’লিশ সদস্যরা দুজনকে হেফাজতে নিয়ে লাথি, ঘুষি মা’রে। সংগঠনের কর্মীরা থা’না ঘেরাও করলে, পু’লিশ তাদের মুক্তি দিতে বাধ্য হয়।’

যোগাযোগ করা হলে ঢাকা মেট্রোপলিটন পু’লিশের (রমনা জোন) সহকারী কমিশনার শেখ মুহম্ম’দ শামীম বলেন, ‘পু’লিশ সদস্যরা ওই দুই কর্মীকে বিদ্যালয়ের দেয়ালে কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে আঁকছিল কিনা তা জিজ্ঞাসা করেছিল।

পু’লিশ সদস্যদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়ানোর পরে তাদের থা’নায় নিয়ে যাওয়া হয়। পরে, মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়।’তবে, ওই দুজনকে হেফাজতে নিয়ে নি’র্যাতন বা ঘটনাস্থলে মা’রধরের অ’ভিযোগ অস্বীকার করেন তিনি।