নোবেলের বিরুদ্ধে ইথুন বাবুর মামলা সিআইডিকে তদন্তের নির্দেশ

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে মানহানিকর স্ট্যাটাস দেওয়ায় কণ্ঠশিল্পী নোবেলের বিরুদ্ধে গীতিকার, সুরকার ও সংগীত পরিচালক ইথুন বাবুর ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলাটি পুলিশের অপরাধ ও তদন্ত বিভাগকে (সিআইডি) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বুধবার ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ আসসামছ জগলুল হোসেন এই আদেশ দেন। আগামী ৬ জুলাইয়ের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। এর আগে গত সোমবার ইথুন বাবু বাদী হয়ে ঢাকা জজকোর্টে মামলাটি করেন।

এ বিষয়ে ইথন বাবু বলেন, ‘আমার দীর্ঘ সংগীত ক্যারিয়ারে এমন কথা আমি কোনো দিন শুনিনি, যে কথা নোবেল বলেছেন। আমি নাকি চোর? আমার মেয়ে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ছে, ছেলে এমবিএ করছে। শ্রোতা-ভক্তসহ সারা দেশে আমার অসংখ্য বন্ধু-স্বজন আছেন। নোবেলের স্ট্যাটাসের কারণে সবার কাছে আমার সম্মানহানি হয়েছে। তাই বাধ্য হয়ে আমি আইনের দ্বারস্থ হলাম।’ এর আগে ইথুন বাবু রাজধানীর হাতিরঝিল থানায় নোবেলের বিরুদ্ধে জিডিও করেছিলেন।

নোবেলের বিচার দাবি করে এই সুরকার বলেন, ‘ফেসবুকে নোবেলের দেওয়া ওই স্ট্যাটাসগুলো আমাদের সংগীতাঙ্গনের জন্য অশনি সংকেত। সিনিয়র শিল্পীকে নিয়ে বাজে সব কথা বলেছেন তিনি। সাংবাদিককে তুলে নিয়ে যাওয়ার ভয়ও দেখাচ্ছেন। আমি মনে করি, দেশের চলমান আইনে তার শাস্তি হওয়া উচিত।’

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি সংগীতশিল্পী নোবেল তার অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ থেকে দেশের স্বনামধন্য একাধিক শিল্পীকে নিয়ে মানহানিকর স্ট্যাটাস দেন। সেই স্ট্যাটাসগুলোর একটিতে ইথন বাবুকে ‘চোর’ বলে আখ্যায়িত করেন তিনি। লেখেন— ‘ইথুন বাবু একটা চোর। অন্যের গান নিজের বলে চালায় দিসে’।