নতুনদের সুযোগ দিতে নিজেকে গুটিয়ে নিলেন তামিম

সব কিছু ঠিক থাকলে এই মাসের শেষের দিকে একটি পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলতে জিম্বাবুয়ে সফরে যাবে বাংলাদেশ দল। এক মাসের এই সফরে স্বাগতিক দলের বিপক্ষে দুটি টেস্ট খেলার কথা থাকলেও টেস্টের সংখ্যা একটি কমিয়ে আনা হয়েছে।

৭ জুলাই থেকে বুলাওয়েতে শুরু হবে একমাত্র টেস্ট। এই ম্যাচ দিয়েই শুরু হবে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ (ডিপিএল) শেষ করে ২৯ জুন জিম্বাবুয়ে পৌঁছাবে বাংলাদেশ দল।

৩ জুলাই থেকে শুরু হবে দলীয় অনুশীলন। টেস্ট শেষে দুই দল পাড়ি জমাবে হারারেতে। সেখানে অনুষ্ঠিত হবে তিনটি করে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি।

জিম্বাবুয়ে-বাংলাদেশ একমাত্র টেস্ট শুরু হওয়ার কথা ৭ জুলাই। চলমান ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ শেষ হবে ২৬ জুনের দিকে। ক্রিকেটাররা জিম্বাবুয়ে উড়াল দেবেন ২৯ জুন।

তবে নতুন নিয়ম অনুযায়ী, জিম্বাবুয়েতে গিয়ে ৫ থেকে ৭ দিন কোয়ারেন্টিন করতে হবে দলকে, যা আগে করার কথা ছিল না। কোয়ারেন্টিনের কারণে ৩ ও ৪ তারিখ লাল বলে দুই দিনের যে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার কথা ছিল বাংলাদেশ দলের, তা হচ্ছে না।

তাই ম্যাচ প্রস্তুতি ছাড়াই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খেলতে নামবে বাংলাদেশ। এইদিকে গুঞ্জন চলছে নিউজিল্যান্ডের ন্যায় জিম্বাবুয়ে সিরিজেও টি-২০ সিরিজে খেলছেন না তামিম ইকবাল।

তবে কয়েকদিন আগে দেশ সেরা এই ওপেনার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন যে, ক্রিকেটে আরও বেশি মনোনিবেশের জন্য এক ফরম্যাট থেকে অবসর নিতে পারেন বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ দলের ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল।

বাকি দুই ফরম্যাটে আরও দীর্ঘদিন খেলার কারণেই এমন সিদ্ধান্ত নেওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন তিনি। অলরাউন্ডারকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তামিম বলেন,‘আমার চেয়ে যদি কেউ ভালো করে, বেশি রান করে, হি ইজ মোস্ট ওয়েলকাম।

শুধু টি-টোয়েন্টি নয়, ওয়ানডে বা টেস্টেও। আমার চেয়ে কেউ ভালো করলে আপনার কী মনে হয়, আমি জায়গা আঁকড়ে থাকব? এটা এমন নয় যে আমি জায়গাটা কিনে নিয়েছি। এটা আমার একার দল না।’

তামিমের মতে, একসাথে তিন ফরম্যাটে খেলা চালিয়ে যাওয়া অসম্ভব। সেক্ষেত্রে টি-টোয়েন্টি থেকে অবসর নেওয়ার সম্ভাবনা বেশি বলেই ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি।