বাবর আজমের জীবনী নিয়ে সিনেমা (ভিডিও সহ)

দুর্দান্ত পারফর্ম করে পাকিস্তান জাতীয় দলের অধিনায়ক এখন বাবর আজম। তিন ফরম্যাটেই তার ওপর আস্থা রেখেছে পাকিস্তান টিম ম্যানেজমেন্ট। অথচ এই অধিনায়ক এক সময় ছিলেন বলবয়। ব্যাটসম্যানদের হাঁকানো বাউন্ডারি আর ছক্কায় মাঠের বাইরে পড়া বলগুলো কুড়িয়ে আনাই ছিল তার দায়িত্ব।

১৩ বছর বয়স থেকেই এ কাজে নিয়োজিত ছিলেন বাবর। আর সেই বলবয় আজ পাক দলের তিন ফরম্যাটের অধিনায়ক। পাকিস্তান ক্রিকেটের পোস্টার বয় তিনি। বর্তমান ক্রিকেটবিশ্বে র্যাং কিংয়ে বিরাট কোহলি, ডেভিড মালানদের প্রতিদ্বন্দ্বী তিনি।

এমন সফলতায় বাবর যে কত ঘাম ঝরিয়েছেন, কত অধ্যবসায় লুকিয়ে আছে তা পরিমাপ করা দুসাধ্য। ২০০৭ সাল থেকেই ২২ গজের খেলায় প্রচণ্ড মনযোগী বাবর। লক্ষ্য ছিল বল কুড়াতে কুড়াতে একদিন ব্যাট হাতে নেবেন। খেলবেন জাতীয় দলে। সেই লক্ষ্যে কঠোর শ্রম দিয়ে নিজের দুর্দান্তভাবে গড়ে তুলে পাকিস্তানের অনুর্ধ্ব-১৯ দলে নাম লেখান বাবার।

তার ব্যাটিং নৈপূণ্য ও চৌকশ ভূমিকায় ২০১২ সালে তাকে অনুর্ধ্ব-১৯ দলে অধিনায়ক করে নির্বাচকরা। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি বাবরকে। সামনে এগিয়েই গেছেন। একের পর এক মাইলফলক পার করেছেন। ২০১৫ সালের ৩১ মে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়েই আন্তর্জাতিক অভিষেক। এরপর পারফরম্যান্স দিয়ে তরতর করে উন্নতি ঘটে তার।

আন্তর্জাতিকে মাত্র ৬ বছর খেলেই পাক দলের অধিনায়ক হন। ওয়ানডে ক্রিকেটে বিশ্বের এক নম্বর ব্যাটসম্যান। নিজের এমন ক্রিকেট ক্যারিয়ার নিয়ে গর্ব করতেই পারেন বাবর আজম। শোনাতে পারেন বিশ্বকে। আর সেটাই করতে যাচ্ছেন তিনি। এক টুইটে বাবর আজম ঘোষণা দিয়েছেন,

তার জীবনী নিয়ে এবার আসছে অটোবায়োগ্রাফি। রুপালি পর্দাতেও দেখা যেতে পারে সেই গল্প।মাঠের বাইরে নিজের লড়াইয়ে গল্প শোনাবেন তিনি সেখানে। এ নিয়ে একটি পোস্টার শেয়ার করেছেন বাবর। সেখানে তিনি লিখেছেন, ’আমার গল্প, অপেক্ষা করুন। আসছে ‘বাবর কী কাহানি (বাবরের কাহিনি)!’

বাবরের এমন টুইটের পর চাতক পাখি হয়ে আছেন তার ভক্ত-অনুরাগীরা। বল বয় কীভাবে পাক দলের অধিনায়ক হয়ে উঠলেন সিনেমার পর্দায় দেখার অপেক্ষায় তারা।