টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট টুর্নামেন্ট উদ্বোধন করলেন নিউইয়র্কের পুলিশ কমিশনার

নিউইয়র্কের কুইন্সের বেইসলি পন্ড পার্কের সবুজ ঘাসের গালিচা বিছানো মাঠে তখন উৎসবের রঙ। নানা রঙের জার্সি পরে দলগুলো প্রস্তুত। পুলিশের ব্যান্ডদল বাদ্যবাজনা পরিবেশকে করে সেটাকে আরও আনন্দঘন করে তুলেছে। উপলক্ষ্যটা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান।

এমনিতেই যুক্তরাষ্ট্রে ক্রিকেট অতটা জনপ্রিয় খেলা নয়। তবে বাংলাদেশ, ভারতসহ ক্রিকেট খেলুড়ে দেশ থেকে আসা প্রবাসীদের কারণে খেলাটির প্রসার হচ্ছে ভালোই। আর টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের এই চমৎকার আয়োজনটি করেছে বাংলাদেশী আমেরিকান পুলিশ এসোসিয়েশন-বাপা এবং কমিউনিকেশন ওয়ার্কার অফ আমেরিকা (সিব্লিউএ)-১১৮২ নামে দুটি সংগঠন।

সোমবার (০৭ জুন) দুপুরে ১২ দলের এই টুর্নমেন্টের উদ্বোধন করেন নিউইয়র্কের পুলিশ কমিশনার ডারমট শেই। বক্তব্য রাখেন সিডব্লিউএ-এর কেন্দ্রীয় ভাইস প্রেসিডেন্ট ডেনিস ট্রেইনর এবং বাপার সভাপতি ক্যাপ্টেন কারাম চৌধুরী।

করোনায় প্রায় বিধ্বস্ত হয়ে যাওয়া নিউইয়র্ক পুরানো চেহারায় ফিরতে শুরু করেছে। মুখে মাস্ক পরার বাধ্যবাধকতা অনেকটা তুলেই নেয়া হয়েছে। যার ছোঁয়া পাওয়া গেলো এই আয়োজনটিতে। করোনায় সামনে থেকে নেতৃত্ব দেয়া এনওয়াইপিডির সদস্যদের মধ্যে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরিয়ে আনতেই এই উদ্যোগ-এমনটাই জানালেন উদ্যোক্তারা। বাংলাদেশি ছাড়াও অন্য কয়েকটি দেশ থেকে আসা প্রবাসী পুলিশ সদস্যরা এই টুর্নামেন্টে অংশ নিচ্ছেন।

অনুষ্ঠানটির উদ্বোধনী বক্তব্য পুলিশ কমিশনার ডারমট শেই করোনা মহামারীতে এনওয়াইডিপির সদস্যদের সাহসী ও ত্যাগী ভূমিকার প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, এই টুর্নমেন্টের মতো অন্যান্য কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে জেগে উঠবে নিউইয়র্ক। পুরে ফিতা কেটে ও বেলুন উড়িয়ে টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করেন তিনি। পরে কয়েকটি খেলা অনুষ্ঠিত হয়। কেবল ছুটির দিনগুলোতে খেলা হওয়ায়, এই টুর্নামেন্ট শেষ হবে ২৭ জুলাই।

করোনায় এনওয়াইপিডির বেশ কয়েকজন সদস্য প্রাণ হারিয়েছেন। সেই সাথে মারা গেছেন পুলিশ সদস্যদের পরিবারের অনেকে। এই আয়োজনে উৎসব মুখরতা থাকলেও, স্মরণে ছিলেন সেইসব সম্মুখসারির বীর যোদ্ধারা।