নিখিল চ্যাপ্টার ক্লোজড, ইনস্টাগ্রাম থেকে সব ছবি মুছে দিলেন নুসরাত

স্বামী নিখিলকে অস্বীকারের পরপরই ইনস্টাগ্রাম থেকে সব ছবি মুছে ফেলেছেন কলকাতার নায়িকা নুসরাত। তুরস্কে বিয়ে ও বিয়ের পরে নিখিলের সঙ্গে যত যুগল ছবি ছিল সব মুছে দিয়েছেন তিনি। তার ইনস্টাগ্রামে ঢুঁ মারলে যে কেউ সেটির প্রমাণ দেখতে পারবেন। খবর জিনিউজের।

নিখিলের সঙ্গে যে ভাঙা সংসার আর জোড়া লাগবে না সেটি বোঝা যায় বুধবার নুসরাতের বক্তব্য থেকে। এদিন নুসরাত বলেন, নিখিলের সঙ্গে তার কোনোদিন বিয়ে হয়নি। তারা কেবল লিভ টুগেদার করেছেন। তাই তাকে আনুষ্ঠানিক তালাক দেওয়ার প্রয়োজন নেই।

আর তারপরেই অভিনেত্রীর বক্তব্য ঘিরে তোলপাড় নেটদুনিয়ায়। এবার ইনস্টাগ্রাম থেকে নিখিলের সঙ্গে বিয়ের সব ছবি সরালেন নুসরত। ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটে জেতার কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই ব্যবসায়ী নিখিল জৈনের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন নুসরত। তুরস্কে তাদের বিয়ে হয়।

বিয়ের ছবি ভাইরাল হয় নেটজগতে। কিন্তু গতকালের মন্তব্যের পর অ্যাকাউন্ট থেকে সব ছবি সরিয়ে ফেলেছেন নুসরাত। রথযাত্রায় ইসকনের মন্দিরে নিখিল ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির সঙ্গে ভাইরাল হওয়া ছবিরও দেখা মিলল না। কেবল হানিমুনে নিখিলের তুলে দেওয়া কয়েকটি ছবিই রেখেছেন নুসরত।

প্রসঙ্গত, তুরস্কে বিয়ে সম্পর্কে বুধবার নুসরাত বলেন, তুরস্কের বিবাহ আইন অনুযায়ী এটা অবৈধ। হিন্দু-মুসলিম বিবাহের ক্ষেত্রে বিশেষ বিবাহ আইন অনুসারে বিয়ে রেজিস্ট্রেশনও হয়নি। ফলে এটা আইনত সিদ্ধ নয়। নিখিলের সঙ্গে আমি লিভ-ইন সম্পর্কে ছিলাম। এটা বিয়েই নয়। সুতরাং বিচ্ছেদের প্রশ্নই ওঠে না।

টালিউড সেনসেশন নুসরাতের সব গয়না, জামাকাপড়ও নিখিলের কাছেই রয়েছে বলে দাবি নুসরতের। মুখ খুলেছেন নিখিল জৈনও। তিনি জানান- ‘আমার বিরুদ্ধে নুসরত যা অভিযোগ এনেছে আমার শুনে খারাপ লাগল, মানুষ হিসাবে খারাপ লাগারই কথা, কিন্তু আমি ওর বিরুদ্ধে কিছু বলতে চাই না। যা হয়েছে তা সবারই সামনে ঘটেছে।