সুখবর পেতে পারেন কনডেম সেলে বন্দি মিন্নি!

ব’রগুনার আলোচিত শাহনেওয়াজ শরীফ ওরফে রি’ফাত শ’রীফ হ’ত্যার মা’মলায় ছয়জনের মৃ’ত্যুদ’ণ্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত। এর মধ্যে রয়েছে রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি। মা’মলার স্বাক্ষী থেকে পুলিশি তদ’ন্তে আ’সামি হয়ে গেলেন রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি। গ্রে’ফতারও করা হয় তাকে। এরপর আবারহাইকোর্ট থেকে জামিনে মুক্তি মেলে।

এবার মৃ’ত্যুদ’ণ্ডের রা’য় ঘোষণা হলো তার বি’রুদ্ধে। রা’য়ে মিন্নিকে এ হ’ত্যাকা’ণ্ডের মাস্টারমাইন্ড হিসেবে চিহ্নিত করেছেন আ’দালত। ফলে আবারো তার স্থান হলো কা’রাগা’রে। তাও আবার ক’নডেম সে’লে। এক হিসাবে দেখা গেছে, স্বাধীনতার পর থেকে শতাধিক নারীর ফাঁ’সির আ’দেশ হয়েছে। কিন্তু আজ পর্যন্ত কোনো নারীর ফাঁ’সি কা’র্যকর হয়নি। তাদের মধ্যে অনেকেই দীর্ঘদিন কা’রা ভোগ করার পর বেরিয়ে গেছে।

কেউ কেউ মা’রা গেছে, কা’রো কারো আপিলে শা’স্তি কমেছে। আর তাই মৃ’ত্যুদ’ন্ডপ্রাপ্ত আ’সামি আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির ফাঁ’সির রা’য় কা’র্যকর নিয়ে দেখা দিয়েছে ধোঁ’য়াশা। কেননা দেশে আজ পর্যন্ত কোনো নারী আসামির ফাঁ’সি কা’র্যকর হয়নি। এদিকে মিন্নির এই রা’য় নিয়ে বিভিন্ন মহলে চলছে আলোচনা।

নানা প্রশ্নের মধ্যে উঠে এসেছে অসংখ্য অজানা তথ্য। রা’য়ের পর মিন্নির পরিবার ও তার আইনজীবীরা শতভাগ আশাবাদি যে, উচ্চ আ’দালতে মিন্নির সাজা কমবে অথবা খা’লাস হয়ে বাড়ি ফিরবেন তিনি। তবে যে যাই বলুক সার্বিক পর্যবেক্ষণে মিন্নির জন্য যে একটা সুখবর রয়েছে তা বলাই যায়। কা’রা সূত্রে জানা গেছে, কা’রা’গারগুলোতে ফাঁ’সির দ’ণ্ডপ্রা’প্ত নারীদের মধ্যে কেউ কেউ ১০-১৫ বছর ধরে ক’নডেম সে’লের বাসিন্দা।

দেশে বহু পুরুষ আ’সামির ফাঁ’সি কা’র্যকর হলেও কোনো নারী আ’সামির ফাঁ’সি কা’র্যকর হয়েছে, এমন তথ্য পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে এক কা’রারক্ষী জানান, তিনি ২৮ বছর ধরে চাকরি করছেন, আজ পর্যন্ত কোনো নারী আ’সামির ফাঁ’সি হয়েছে, এমন কথা তিনি শোনেননি। ২০০৭ সালে কাশিমপুরে একমাত্র মহিলা কা’রাগা’র উদ্বোধন করা হয়। দেশের প্রতিটি কা’রাগা’রে ফাঁ’সির মঞ্চ থাকলেও সেখানে কোনো ফাঁ’সির মঞ্চ নেই।

জানা গেছে, অতীতে কোনো নারী আ’সামির ফাঁ’সি কার্যকরের রেকর্ড না থাকায় ফাঁ’সির মঞ্চ বানানো হয়নি। নিয়মানুযায়ী ফাঁ’সির আ’সামিরা সর্বশেষ সুযোগ হিসেবে রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করতে পারেন। রাষ্ট্রপতি তাদের ক্ষমা না করলে ফাঁ’সি থেকে বাঁচার কোনো সুযোগ নেই। তবে আজ পর্যন্ত কোনো নারীর আবেদন রাষ্ট্রপতির কাছে গেছে, এমন খবরও শোনা যায়নি।

উল্লেখ্য, বর্তমানে দেশে ৪৯ জন নারী ফাঁ’সির দ’ণ্ড মাথায় নিয়ে বিভিন্ন কা’রাগা’রের ক’নডেম সে’লের বাসিন্দা। ফাঁ’সির দ’ণ্ডপ্রা’প্তদের থাকার এই সেলের সর্বশেষ বাসিন্দা হয়েছেন বর’গুনার আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি।