পরীমণির পুরোপুরি অস্বীকার

আলোচিত নায়িকা পরীমণিকে নিয়ে নতুন অভিযোগ, গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাবে ভাঙচুরের ঘটনা ঘটিয়েছেন। ক্লাবটির প্রেসিডেন্ট কে এম আলমগীর ইকবাল জানান, গত ৭ জুন মধ্যরাতে ছেলে ও নারী সঙ্গীসহ এসে কথা কাটাকাটির পর ভাঙচুর করেন তিনি। এ সময় ১৫টি গ্লাস, ৯টি ছাইদানি (অ্যাশট্রে) এবং বেশকিছু হাফ প্লেট ভেঙেছেন তারা।

তবে ঢাকাই ছবির অন্যতম শীর্ষ এ নায়িকা ভাঙচুরের ঘটনাটি পুরোপুরি অস্বীকার করেছেন। সংবাদটি মিডিয়ায় আসার কয়েক ঘণ্টার পর আজ রাত ১০টার দিকে বনানীর বাসায় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন পরী।
তার ভাষ্য, ‌‘আমি যদি অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটিয়েই থাকি, তাহলে এতদিন (৮ দিন) পরে কেন সেটি মিডিয়ায় এলো। যদি ঘটাতাম,

এতদিন কি কোনোভাবেই মিডিয়ায় আসতো না? আমি চাই, এটা নিয়েও তদন্ত হোক। ’ নিজের অবস্থানের সঙ্গে তুলনা করে তিনি আরও বলেন, ‘আমার সঙ্গে যেটা (ঢাকা বোট ক্লাবে নির্যাতন) হয়েছে, হওয়ার পরের চারদিন কিন্তু আমি বসে থাকিনি। সবাইকে জানানোর চেষ্টা করেছি। কিন্তু ওরা কী করেছেন?

আমি যদি কোনও অপরাধ করে থাকি, তাহলে তারা কেন এতদিন চুপ করে ছিলেন? আমি যখন অভিযোগ করলাম, তাদের (ঢাকা বোট ক্লাবে নির্যাতনে অভিযুক্ত নাসির ইউ মাহমুদ) বিষয়টি সামনে আনলাম তখন তারা (অল কমিউনিটি ক্লাব) এটি নিয়ে কথা বলছে। বোঝাই যাচ্ছে, আসল ঘটনার ফোকাস ঘোরানোর চেষ্টা। আপনারা দয়া করে মূল ঘটনা কোনোভাবেই এদিক-ওদিক হতে দেবেন না।’

পরী সাংবাদিকদের অনুরোধ করেন তার পাশে থাকতে। জানান, তিনি শারীরিক ও মানসিকভাবে ভালো নেই। এমনকি জ্বর নিয়েই আজকে সবার সঙ্গে কথা বলছেন। আর গত কয়েকদিন ধরেই নানা ধরেন চাপে আছেন পরী। বলেন, ‘এমন কিছু ব্লেইম করা হবে বলে মনে হচ্ছিল। চারদিন ধরে অনেকেই তা আমাকে বলেছেন। আমিও সেটা বুঝেছিলাম। সত্যি, এবার মনে হচ্ছে আমি ক্লান্ত। আর পারছি না।’

আসলেই কি আপনি ওখানে গিয়েছিলেন- এমন প্রশ্নে পরী বলেন, ‘আমি গিয়েছিলাম, কিন্তু অপ্রীতিকর কিছু ঘটাইনি। গিয়েছি যে, সেটা কিন্তু সিসি ফুটেজেই দেখা যাচ্ছে।