এবার পরীমণিকে দুষলেন নারী উদ্যোক্তা হেলেনা জাহাঙ্গীর

সময়ের সাথে সাথে পাল্লা দিয়ে যে কয়জন অভিনেত্রী সিনেমা প্রেমীদের হৃদয়ের মণিকোঠায় জায়গা করে নিয়েছেন তাঁর মধ্যে পরীমণি অন্যতম। এই পর্যন্ত ভিন্নধর্মী চরিত্রে অভিনয় করে তিনি আলোচনায় এসেছেন বহুবার। ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার বিষয়ে কথা বলে ফের আলোচনায় এসেছেন এই বিউটি কুইন।

নতুন খবর হচ্ছে, দেশের জনপ্রিয় অভিনেত্রী পরীমণি তাকে ধর্ষণ ও হত্যা চেষ্টার অভিযোগ আনার পর থেকে আলোচনার শেষ নেই। বিষয়টি নিয়ে সংসদেও কথা উঠেছে। এবার এ ঘটনা নিয়ে মুখ খুললেন নারী উদ্যোক্তা ও বোটক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হেলেনা জাহাঙ্গীর। এক সাক্ষাৎকারে তিনি সেই ঘটনায় পরীমণিকেই দোষারোপ করেছেন।

হেলেনা জাহাঙ্গীর দাবি করেছেন, অভিযুক্ত আবাসন ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদের মতো মানুষ কিছুতেই পরীমণিকে ধর্ষণের চেষ্টা করতে পারেন না। আমরা জানি না এখানে ইনজাস্টিস হচ্ছে কিনা। আমরা জাস্টিসের অপেক্ষায় আছি। নাসির সাহেব উনি চার-পাঁচবার নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট উত্তরা ক্লাবের। আমি যতগুলো ক্লাবের সদস্য, উনি ততগুলো ক্লাবের সঙ্গে আছেন।

উনার আচার-আচরণে কোনোদিনই আমরা খারাপ কিছু দেখিনি। এটা আমার ব্যক্তিগত অভিমত। হেলেনা জাহাঙ্গীর বলেন, বোট ক্লাব ও গুলশান ক্লাবের আমিও মেম্বার। নাসির ভাই আমার বাসায় এসেছেন, দাওয়াত খেয়েছেন। আমি কোনোদিন উনার চোখের নজর খারাপ দেখিনি জানিয়ে এই নারী উদ্যোক্তা আরও বলেন, ছেলের বউসহ আমার মেয়েরা ক্লাবের অ্যাসোসিয়েট মেম্বার।

তারা রাত আটটার পরে ঘরের বাইরে থাকুক আমি চাইব না। আমার বাসার সামনে গুলশান ক্লাব। ওরা কোনোদিন যায় না। ওরা বরং বান্ধবীদের বাসায় গেলেও সন্ধ্যা সাতটার মধ্যে বাসায় ফিরে আসে। তিনি পরীমণিকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‌‌‌‘আমি মনে করি, নায়িকা-গায়িকা সবকিছু বাদে সে তো একটা মানুষ। সে তো একটা মেয়ে।

সে রাত ১২টার সময় দুই গাড়ি ভরে সেই কোথায় বোট ক্লাব, সেখানে কীভাবে যায়? আমার প্রশ্ন এটাই। তাকে যে ধর্ষণ ও হত্যা চেষ্টা করা হয়েছে কেউই কিন্তু দেখেনি। আমরা যদি ১৫ সেকেন্ডের ভিডিওটা শুনি ভালো করে, সেখানে কিন্তু কোনো নারীর আওয়াজ আসেনি। হেলেনা জাহাঙ্গীর আরও বলেন,

একটা ধর্ষণ চেষ্টা হওয়া নারী, যাকে নাকি হত্যা চেষ্টা করা হয়েছে সে মিডিয়ার সামনে হাসে কীভাবে। দেখলাম ডিবি অফিসের সামনে যখন গেল (পরীমণি), ও ক্যামেরার সামনে কেমন মুচকি মুচকি হাসতেছিল। একটা ধর্ষণ চেষ্টা হওয়া নারী যাকে হত্যা চেষ্টা করা হয়েছে সে এগুলো কেমনে করে! নাম্বার টু, দুই কোটি টাকা যদি তার সাথে লেনদেন হয়েই থাকে, আর সেই টাকার জন্য যদি নাসির উদ্দিন এমন করে থাকেন তাহলে সে তাকে চেনেন না কেন?