একের পর এক বের হচ্ছে সব থলের বিড়াল, রা’য়ের পর একে একে সকল কু’কৃ’তি ফাঁ’স হচ্ছে মি’ন্নি’র !

বরগুনার আলোচিত রি’ফাত হ’ত্যা মা’ম’লা’য় রা’য় দিয়েছে আ’দা’ল’ত। এতে রিফাত শ’রীফের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মি’ন্নিসহ ছয়জনকে মৃ’ত্যু’দ’ণ্ড দেয়া হয়েছে।রা’য় দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মি’ন্নি স’ম্পর্কে না’না

ত’থ্য ভেসে বে’ড়াচ্ছে। প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকেই মি’ন্নির বে’প’রোয়া জীবনযাপন শুরু হয়েছিল বলে দাবি এলাকাবাসীর। বাবা-মায়ের অধিক প্র’শ্র’য়ে আজকের এ প’রিণ’তি।

এলাকাবাসী জানায়, পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ার সময়ে মিন্নি অনেকের সঙ্গে প্রে’মে জ’ড়িয়ে প’ড়ে। এরই ধা’রাবা’হিক’তায় নয়ন ব’ন্ড ও রিফাত শ’রীফ ছিল তার শি’কার। সেই প্রেম সূত্র থেকেই রিফাত শ’রীফকে হ’ত্যা করে নয়ন ব’ন্ড ও তার

সহ’যো’গী স’ন্ত্রা’সীরা।বহুল আ’লোচিত এই হ`ত্যা মা`মলা নিয়ে নানা রকম তথ্য প্র`কাশিত হয়েছে। তবে বে`শিরভাগ তথ্য উঠে এসেছে মি`ন্নি, রিফাত ও নয়নের ফোন কল সূত্রে রিফাত শরীফ হ`ত্যাকা`ণ্ডের আগে ও পরে মি`ন্নির সঙ্গে

নয়ন ব’ন্ডের ক`থোপকথনসহ মেসেজ আদান-প্রদানের তথ্য উ`দ্ধার করে পু`লিশ। ব`রগুনা জে’লা পু`লিশের নাম প্র`কাশে অ`নিচ্ছুক এক স`দস্যের বরাত দিয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যে বলা হয়,

মি`ন্নি একটি সিম ব্যবহার করতেন যেটি নয়ন ব’ন্ডের দেয়া। সিমটি নয়ন ব’ন্ডের মায়ের নামে রেজিস্ট্রেশন করা। পু`লিশের দা`বি, রিফাত শ`রীফের সঙ্গে বিয়ের পরও নয়নের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে ওই সিমটি ব্যবহার করত মিন্নি।

হ`ত্যাকা`ণ্ডের দিন সকাল ৯টা ৮ মিনিটে ওই নম্বর দিয়েই নয়ন ব’ন্ডকে কল করে ৬ সেকেন্ড কথা বলেন মিন্নি। এসময়m তাদের ৪০ সেকেন্ড কথা হয়।হা`মলার পর বেলা ১১টা ৩১ মিনিটে নয়ন ব’ন্ড মি`ন্নিকে একটি এসএমএস পাঠিয়েছিলেন।

পরে রি`ফাত শ`রীফ মা`রা যাওয়ার পর বিকেল ৪টার কিছু সময় আগে নয়ন ব’ন্ড মি`ন্নির কাছে আরেকটি এসএমএসপাঠিয়েছিলেন।পাঠানো ওই এসএমএসটিতে লেখা ছিল, ‘আমা’রে আমা’র বাপেই জন্ম দেছে।’মি`ন্নিকে জিজ্ঞাসাবাদে

অংশ নেয়া ওই পু`লিশ স`দস্যের বরাতে গণমাধ্যমে বলা হয়েছিল, রি`মান্ডে মিন্নির কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে মি`ন্নি বলেছেন, রিফাত শ`রীফকে মা`রার প’রিক’ল্প’নার সময় মি`ন্নি ন`য়ন ব’ন্ডকে বলেছিলেন, ‘তুমি যদি রিফাত শ`রীফকে

মা`রতে পার, তাহলে বুঝব তোমা’রে তোমা’র বাপেই জন্ম দিছে।’বুধবার দুপুরে আ’লো’চিত এ হ’ত্যা মা’ম’লার রা’য় ঘোষণা করেন বরগুনা জেলা ও দা’য়রা জ’জ আ”দাল’তের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান। এ মা’ম’লা’য় প্রা’প্তবয়’স্ক ১০

আ’সা’মি’র মধ্যে বাকি চারজনকে খা’লা’স দেয়া হয়েছে। এর আগে, এ দিন সকাল ৯টায় বাবা মোজা‌ম্মেল হক কি‌শোরের সঙ্গে মি’ন্নি আ’দা’লত প্রাঙ্গণে আসেন। এরপর

কা’রা’গা’র থেকে আট আ’সা’মি’কে আ’দা’ল’তে আনা হয়। রা’য়ের পর ক’ঠোর নি’রা’প’ত্তার মধ্য দিয়ে ২টা ৫০ মিনিটে মি’ন্নিকে আ’দা’লত থেকে ডি’বি পু’লিশের একটি কালো মাইক্রোবাসে কা’রা’গা’রে নেয়া হয়। এর ১০ মিনিট পর পুলিশের

প্রি’জন ভ্যা’নে কা’রা’গারে নেয়া হয় বাকি মৃ’ত্যু’দণ্ড-প্রা’প্ত’দের।২০১৯ সালের ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে নয়ন ব’ন্ড ও তার স’হযোগী স’ন্ত্রা’সী’রা প্র’কা’শ্যে রা’ম’দা দিয়ে কু’পি’য়ে রিফাত শ’রীফকে গু’রু’তর আ’হত করে।

এরপর বী’রদ’র্পে অ”স্ত্র উঁচিয়ে এলাকা ছাড়েন তারা। গু’রু’তর আ’হত রিফাত বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওইদিনই মা’রা যান। ওই বছরের ১ সেপ্টেম্বর রিফাত শরীফ হ’ত্যা মা’ম’লা’য় রিফাতের স্ত্রী মি’ন্নিসহ ২৪ জনের বি’রু’দ্ধে বরগুনার সিনিয়র

জু”ডিশিয়া’ল ম্যা’জি’স্ট্রেট আ’দা’লতে চা’র্জ’শিট দেয় পুলিশ। একইসঙ্গে রিফাত হ’ত্যা মা’মলা’র এক নম্বর আসামি ন’য়’ন ব’ন্ড ব’ন্দু’কযু”দ্ধে নিহ”ত হওয়ায় তাকে মা’ম’লা থেকে অ’ব্যা’হ’তি দেয়া হয়।চলতি বছরের ১ জানুয়ারি রিফাত হ’ত্যা মা’ম”লা’র প্রা’প্তব’য়স্ক ১০ আসামির বি’রু’দ্ধে চা’র্জ গ’ঠন করে বরগুনার জেলা ও দা’য়’রা জ’জ আ’দা’লত। ৮

জানুয়ারি একই মা’ম’লা’র অ’প্রা’প্তবয়’স্ক ১৪ আ’সা’মির বি’রু’দ্ধে চা’র্জ গঠন করে বরগুনার শিশু আ’দা’লত।এ মা”মলা’র চা’র্জশি’টভু’ক্ত প্রা’প্তবয়স্ক আসামি মো. মুসা এখনো প’লা’তক রয়েছেন।