ঝালকাঠিতে আরেক ‘মি’ন্নি’র’ ‘উ’ত্থা’ন, রিফাতের মত ‘ধ্বং’স’ হতে পারে আর একটি পরিবার

দেশের বিভিন্ন জে’লায় মাঝেমধ্যে দেখা যায় তরুণ-তরুণীদের বিভিন্ন প্রতারণার কৌশল প্রে’মের ফাঁদে ফেলে অন্যের থেকে স্বার্থসিদ্ধি আদায় করতে হয় কিভাবে সেটা তারা ভাল করেই জানে। বিভিন্ন সময় দেখা যায় অনেক তরুণ যুবক

বিভিন্ন নারীদের ফাঁদে ফেলে তাদের থেকে অর্থ হাতিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায় প্রে’মের স’ম্পর্ক গড়ে তাদের স্বার্থ সিদ্ধি আদায়ের হওয়ার পর তারা কে’টে পড়ে তবে মেয়েরাও পিছিয়ে নেই এক্ষেত্রে ঝালকাঠিতে একাধিক ছে’লেকে প্রে’মের

ফাঁদে ফেলে টাকা পয়সা হাতিয়ে নিয়ে কিছুদিন স’ম্পর্কের পর আবার নতুন করে অন্য ছে’লেকে পটানোর অ’ভিযোগ ও তথ্য প্রমাণ মিলেছে এক কি’শোরীর বি’রুদ্ধে। একইসঙ্গে ৫ জন প্রে’মিকের মন রক্ষা করে চলছিলো প্রে’ম। হঠাৎ
এক বিদ্রোহী প্রে’মিকের কা’ণ্ডে লণ্ডভণ্ড হয়ে যায় প্রে’মের এই হাট।

এক বছরের প্রে’ম ও পারিবারিকভাবে বিয়ের প্রস্তাব চলাকালে একাধিক প্রে’মিকের সঙ্গে স’ম্পর্কের ঘটনা ফাঁ’স হয়। পরবর্তীতে এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে একাধিক
প্রে’মিকের প্রে’মিকা নাসরিন আক্তার সারা তার সর্বশেষ প্রে’মিকের নামে ঝালকাঠি সদর থা’নায় একটি মা’মলা দায়ের করেন। অ’পরদিকে, ওই কি’শোরীকে কেন্দ্র করে ঝালকাঠিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনার ঝড়

বইছে। আবার অনেকেই স্যোশ্যাল মিডিয়ায় সবাইকে সাবধান করছেন, \’ঝালকাঠিতে আরেক বরগুনার আয়শা সিদ্দিকির উত্থান, রিফাতের মত ধ্বংস হতে পারে আর একটি পরিবার\’। এবার আসি \’আয়শা সিদ্দিক\’ হয়ে ওঠা
কি’শোরী নাসরিন আক্তার সারার প্রে’মের নামে অর্থ হাতানোর গল্পে। কে এই নাসরিন আক্তার সারা? কী’ হয়েছিলো শহরের ফকিরবাড়ি এলাকার নাসরিন আক্তার সারার বোনের বাসায়? কেনইবা এই ছে’লে তার সাজানো নাট’কে পা

বাড়ালো। যেখানে বছরখানেক প্রে’মের স’ম্পর্কের পর পারিবারিক স’ম্পর্কের দিকে এগোচ্ছিলো হঠাৎ কেন তার বি’রুদ্ধে আনা হলো নি’র্যাতনের অ’ভিযোগ? সকলেরই মনে এই প্রশ্ন।জানা গেছে, প্রে’মের নামে অর্থ হাতানোই ছিল
নাসরিন আক্তার সারার পেশা। সাবেক দুই প্রে’মের বিচ্ছেদ ঘটে অর্থ-বাণিজ্যের কারণে। চলতি বছরের জানুয়ারিতে বাবা মায়ের একমাত্র ছে’লে জুবায়ের আদনানের সঙ্গে তার তৃতীয় প্রে’মের পথচলা শুরু হয়। দীর্ঘ এক বছরের প্রে’ম

পৌঁছায় পারিবারিক স’ম্পর্কে। রক্ষণশীল পরিবারে বেড়ে ওঠা জুবায়ের আদনান বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সঙ্গে জ’ড়িত। গত ছয় বছর ধরে পড়াশোনার জন্য ঝালকাঠিতেই অবস্থান করছেন তিনি। জুবায়ের\’র পিতা নলছিটি

উপজে’লার একটি মাদ্রাসার শিক্ষক ও ম’সজিদের ই’মাম। ঐ মাদ্রাসার শিক্ষক (জুবায়েরের পিতা) খোঁজ নিয়ে
জানতে পারেন, সারার পরিবারের চলাফেরা অনেকটা খোলামেলা ও উগ্র মানসিকতার। এছাড়া সামাজিক অবস্থান
সন্তোষজনক না হওয়ায় তিনি বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন। উল্লেখ্য, স’ম্পর্কের শুরু থেকে সারার নিজের এবং

পরিবারের স’ম্পর্কে বলা প্রতিটি কথা মিথ্যা ছিলো যা বিবাহের আলাপের সময় খোঁজ নিয়ে জুবায়েরের পরিবার জানতে পারে। আর এ স’ম্পর্কে গত দুই মাস ধরে অসংখ্যবার জানতে চাইলেও সারা বা তার পরিবারের কেউ সদুত্তর দেয়নি। উল্টো খা’রাপ ব্যবহার করেছেন।

বার বার জানতে চাওয়ায় ক্ষিপ্তও হয় সারার পরিবার। পরে ওই মাদ্রাসার শিক্ষক তার একমাত্র ছে’লে জুবায়েরকে সারার পরিবার থেকে স’ম্পর্ক বিচ্ছিন্ন করতে বলেন।
অ’পরদিকে, সারার বোন জুবায়ের আদনানকে কূট পরাম’র্শ দিয়ে তার (জুবায়ের) পরিবার থেকে আলাদা করে রাখে। বিভিন্ন সময় সারার বর্তমান প্রে’মিক জুবায়েরকে তাদের বাসায় ডেকে নিয়ে শলা-পরাম’র্শ করে তাদের প্রে’মকে

বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ করার জন্য প্রস্তাব রাখে। পরিবারের সম্মতি এবং সকলের উপস্থিতিতে বিয়ে করবে জানিয়ে তাদের প্রস্তাবে সম্মতিও জানায় জুবায়ের।প্রে’মের স’ম্পর্কের সূত্র ধরেই বিভিন্ন সময় সারা ও তার পরিবারের সাথে ওঠাবসায় জুবায়েরের ব্যাপক ঘনিষ্ঠতা তৈরি হয় ঐ পরিবারের সঙ্গে। আর এই ঘনিষ্ঠতার সূত্র ধরেই অর্থনৈতিক অবস্থা খা’রাপ থাকায় জুবায়েরের কাছ থেকে ধার বাবদ কখনো পাঁচ হাজার কখনো দশ হাজার কখনো এর অধিক নগদ টাকা নিয়ে

আসছিল সারা ও তার পরিবারটি।ঘনিষ্ঠতা ও অর্থ লেনদেনের ব্যাপারটি সারার প্রাক্তন ও বর্তমান সব প্রে’মিকের সাথেই ঘটে আসছে বলে অ’ভিযোগ রয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে সংগঠনের কাজের নামে পার্কে ঘোড়া, সুগন্ধা বিষখালীতে নৌকা ভ্রমণ, ভিম’রুল পেয়ারা বাগানসহ বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেড়াতো। আর সেখানেও অর্থের যোগান ছিল জুবায়ের।
এতকিছু করার পরেও নিজেদের মান অ’ভিমান বা সামান্য ঝগড়াঝাঁটির সময়ে এই স’ম্পর্কটির পাশাপাশি অন্য

স’ম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন সারা। যখন জুবায়ের জানতে পারে তার প্রে’মিকা অন্য কারো সঙ্গে স’ম্পর্কে জড়িয়েছে তখন প্রে’মিকা পাগল জুবায়ের দিশেহারা হয়ে পড়ে। বিষয়টা সে কিছুতেই বিশ্বা’স করতে পারছিলো না। এমনকি সারা ও তার পরিবারের সঙ্গে ফেসবুকে, ফোনে যোগাযোগের অনেক চেষ্টা করেও বার বার ব্যর্থ হয়েছে জুবায়ের।
সার্বিক এই বিষয়গুলো নিয়ে সারা এবং তার পরিবারের সাথে কথা বলার জন্য গতকাল (শুক্রবার) দুপুরে সারার বোনের

বাসায় যায় জুবায়ের। কথাবার্তার এক পর্যায়ে সারার বড় বোনের কাছে জানতে চাইলে তিনি ছোটো বোনের সকল অন্যায়ের কথা অস্বীকার করে এবং রাগান্বিত হয়ে জুবায়েরকে চর মা’রেন। এদিকে সারা একবছরের প্রে’মের স’ম্পর্ক অস্বীকার করে দাবি করেন, জুবায়ের তাকে প্রে’মের প্রস্তাব দেয় এবং তা প্রত্যাখ্যান করায় জুবায়ের তার উপরে হা’মলা করে। ঘটনার পরপর ঝালকাঠি সদর হাসপাতা’লে ভর্তি হয় সারা। এ বিষয়ে সারা নিজেই বাদী হয়ে প্রে’মিক

জুবায়েরর বি’রুদ্ধে ঝালকাঠি থা’নায় মা’মলা দায়ের করেন। এ ব্যাপারে ঝালকাঠি থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা আবু তাহের মিয়া জানান, এ ঘটনায় সারা নামের কি’শোরীর লিখিত অ’ভিযোগ পেয়ে মা’মলা রুজু করি। ত’দন্ত ও আ’সামি গ্রে’প্তার অ’ভিযান অব্যাহত আছে। এবার ঝালকাঠিতে এক তরুনীর বহু পুরুষের সাথে স’ম্পর্কের প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে এবং তাকে নিয়ে রীতিমতো আলোচনা চলছে সেখানে।নতুন নতুন ছে’লের সাথে স’ম্পর্ক করে তাদের থেকে টাকা-পয়সা হাতিয়ে নিয়ে কিছুদিন স’ম্পর্কের পর আবার নতুন অন্য ছে’লেকে পটানোর অ’ভিযোগ এবং তথ্য প্রমাণ এই কি’শোরের বি’রুদ্ধে রয়েছে