‘তুমি যদি রিফাতকে মা’র’তে পার, তাহলে বুঝবো তোমা’রে তোমা’র বাপে’ই জন্ম দিছে’: নয়ন বন্ডকে মি’ন্নি

বহুল আ’লো’চিত বরগুনা’র রি’ফাত শরীফ হ’ত্যা’ মা’মলায় প্রা’প্তবয়’স্ক ১০ আ’সা’মির মধ্যে মিন্নিসহ ৬ জনে’র মৃ’ত্যু’দ’ণ্ডের আদেশ দি’য়েছেন আ’দাল’ত।

ফাঁ’সি’র আদে’শের পরই মি’ন্নিকে হেফা’জতে নেয় পু’লিশ। রিফাত হ’ত্যা’র পর থেকেই নানা রকম তথ্য প্রকাশিত হতে থাকে। তার বেশি’রভা’গ তথ্যই পাওয়া গেছে মিন্নি, রিফাত ও নয়’নের ফোন কল থেকে।

আ’লো’চিত এই ঘ’টনার আগে ও পরে মিন্নি’র সঙ্গে নয়ন ব’ন্ডে’র ক’পকথন’স’হ মেসেজ আদান-প্র’দানের তথ্য উ’দ্ধা’র করে পু’লিশ। বরগুনা জে’লা পু’লিশের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সদ’স্যের ব’রাত দিয়ে

গণমা’ধ্যমে প্র’কাশি’ত তথ্যে ব’লা হয়, মিন্নি একটি সিম ব্যব’হার ক’রতেন যে’টি নয়ন ব’ন্ডের দেয়া। সিমটি নয়’ন ব’ন্ডের মা’য়ের নামে রে’জি’স্ট্রেশন করা।

পু’লি”শের দাবি, ‘রিফা’ত শরী’ফের সঙ্গে বিয়ে’র পরও নয়’নের সঙ্গে যো’গা’যোগ রাখতে ওই সিমটি ব্য’বহা’র করতে’ন মিন্নি। হ’ত্যা’কা’ণ্ডের দিন সকাল ৯টা ৮ মিনি’টে ওই নম্বর দি’য়েই নয়ন ব’ন্ডকে কল করে ৬ সে’কেন্ড কথা বলেন মিন্নি।

এসময় তাদে’র ৪০ সে’কেন্ড কথা হয়। হা’মলার পর বেলা ১১টা ৩১ মিনি’টে নয়ন ব’ন্ড মি’ন্নিকে একটি এসএম’এস পাঠি’য়েছি’লেন। পরে রিফা’ত শ’রীফ মা’রা যাও’য়ার পর বিকেল ৪টার কিছু সময় আ’গে নয়ন ব’ন্ড মিন্নি’র কাছে আ’রেক’টি এসএমএস পাঠি’য়েছিলে’ন। পাঠানো ওই এসএ’মএস’টিতে লেখা ছিল, ‘আমা’রে আ’মা’র বাপেই জন্ম দেছে।’

মিন্নিকে জি’জ্ঞাসাবা’দে অংশ নেয়া ওই পু’লিশ সদ’স্যের বরা’তে গণ’মাধ্যমে বলা হ’য়েছিল, রি’মান্ডে মিন্নির কাছে এ বিষ’য়ে জান’তে চাইলে মি’ন্নি বলেছেন, ‘রি’ফাত শরী’ফকে মা’রার পরি’কল্প’নার সময় মিন্নি নয়ন ব’ন্ড’কে বলেছি’লেন, ‘তুমি যদি রিফা’ত শরীফ’কে মা’র’তে পার, তাহলে বু’ঝবো তোমা’রে তোমা’র বা’পেই জ’ন্ম দিছে।’

গত বছরে’র ২৬ জুন বরগু’না সর’কারি কলেজের সাম’নে রিফাত হ’ত্যা’কা’ণ্ডের ঘট’না ঘটে। ঘ’টনার প’রের দিন ১২ জ’নের নাম উ’ল্লেখ করে অ’জ্ঞা’ত আরো ৫-৬ জনে’র বি’রু’দ্ধে হ’ত্যা’ মা’ম’লা দায়ের করেন নি’হ’ত রিফা’তের বাবা আ’বদুল হা’লিম দুলাল শরীফ।

মিন্নি
এরপর ওই বছরের ১ সে’প্টেম্বর প্রা’প্ত’বয়’স্ক ও অ’প্রা’প্ত’বয়স্ক; দু’ভা’গে বিভক্ত করে ২৪ জ’নের বি’রু’দ্ধে আ’দা’লতে ত’দ’ন্ত প্রতি’বেদন দাখিল করে পু’লিশ। এতে প্রা’প্ত’বয়স্ক ১০ জন এবং অ’প্রা’প্ত’বয়স্ক ১৪ জন’কে অ’ভিযু’ক্ত করা হয়।

গত ১ জানু’য়ারি রিফা’ত হ’ত্যা’ মা’ম’লার প্রা’প্তবয়’স্ক ১০ আ’সা’মি’র বি’রু’দ্ধে চা’র্জ গঠন করে ব’রগুনা জে’লা ও দায়’রা জ’জ আ’দা’লত। এরপর ৮ জা’নু’য়ারি থেকে প্রা’প্তব’য়স্ক ১০ আ’সা’মি’র বি’রু’দ্ধে সা’ক্ষ্যগ্র’হণ শুরু করেন আ’দাল’ত। মোট ৭৬ জন সা’ক্ষীর সা’ক্ষ্যগ্র’হণ করা হ’য়েছে এ মা’ম’লায়।

গত ১৬ সেপ্টে’ম্বর এ মা’ম’লার দুই পক্ষের যু’ক্তি’ত’র্কের শুনানি শেষে বরগু’নার জে’লা ও দায়রা জজ আ’দাল’তের বিচারক মো. আসা’দুজ্জা’মান রায়ের জন্য বুধবা’রের দিন নির্ধারণ করেন।