ফের নোয়াখালীতে ‘ধ’র্ষ’ণ

নোয়াখালীর গৃহবধূ ‘নির্যা’তনের খবরে সারাদেশে চলছে প্রতিবাদ নি’ন্দা ঘৃ’ণার ঝড়। ঠিক তখনই নোয়াখালীতে সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী ‘ধ’র্ষ’ণে’র অভি’যোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় বুধবার (৭ অক্টোবর) সুধারাম থা’নায় মা’মলা হয়েছে।

নোয়াখালী সদর উপজেলার এওজবালিয়া ইউনিয়নের পূর্ব এওজবালিয়া গ্রামের এক সপ্তম শ্রেণির ছাত্রীকে ‘ধ’র্ষ’ণ’ করেছে একই গ্রামের মৃত বাবুল মিয়ার ছেলে জসীম উদ্দিন। এ ঘট’নায় বুধবার বিকেলে সুধারাম মডেল থা’নায় নির্যা’তিত ওই কিশোরী অভি’যোগ দা’য়ের করেন।

মা’মলার এজাহারে জানা যায়, পূর্ব এওজবালিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রীকে একই গ্রামের পাশর্ণিবর্তী বাড়ির মৃত বাবুল মিয়ার ছেলে জসীম উদ্দিন (২২) ওই কিশোরীকে প্রে’ম নিবেদন করতো, কিশোরী তাতে সম্মত না হওয়ায় জসীম ‘হু’মকি-‘ধা’মকি দিতো এবং তাকে বিয়ে করবে এমন আশ্বাস দিয়ে এক মাস আগে কিশোরীদের বাড়ির পেছনে বাগানে নিয়ে ‘ধ’র্ষ’ণ করে।

বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক মাসে চারবার ‘ধ’র্ষ’ণ’ করে এবং সর্বশেষ ১৫ সেপ্টেম্বরও তাকে বিয়ে করবে বলে আশ্বাস দিয়ে ‘ধ’র্ষ’ণ’ করে। এখন জসীম বিয়ে করার আশ্বাস ও ‘ধ’র্ষ’ণে’র’ বিষয়ও অস্বীকার করছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়।

কিশোরীর মা হোসনে আরা বেগম বলেন, আমি চট্টগ্রামে থাকি। জসীম সবসময় মেয়েকে স্কুলে যাওয়া আসার পথে ‘উ’ত্ত্য’ক্ত’ করতো, ভ’য় ভী’তি দেখাতো।

স্কুল থেকে ফিরে মেয়ে কাউকে কিছু বলতো না। গতকাল আমি চট্টগ্রাম থেকে আসার পর রাতে আমার মেয়েকে বাইরে নেবার জন্য জসীম আসে।

এসময় সব কথা মেয়ে আমাকে খুলে বলে। ওই ছেলে এখন বিয়ে করবে না বলে জানায়। আমি এলাকাবাসীকে বিষয়টি অবহিত করলে তারা থা’না’য় মা’ম’লা করার পরামর্শ দেন।

সুধারাম মডেল থা’না’র ও’সি নবীর হোসেন সত্যতা স্বীকার করে বিডি২৪লাইভকে জানান, এ ঘট’নায় মা’ম’লা গ্রহণ করা হয়েছে। মা’ম’লা’ নং-১১। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্য’বস্থা নেওয়া হবে।