মেয়েকে আ’টকে রেখে ধ”র্ষ”ণ, বাবা গ্রে”প্তা’র

১৬ বছর বয়সী মেয়েকে ধ”র্ষ”ণে’র অভি’যো’গে শরিফুল ইসলাম নামে একজনকে গ্রে”প্তা’র করেছে সিআইডি। মঙ্গলবার (৬ অক্টোবর) মানিকগঞ্জের হরিরামপুর থেকে কথিত সাধক শরিফুল ইসলামকে গ্রে”প্তা’র করা হয়।

বুধবার (৭ অক্টোবর) মালিবাগে সিআইডির প্রধান কার্যালয়ে ডিআইজি শেখ নাজমুল আলম সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য জানান।

শেখ নাজমুল আলম জানান, মানিকগঞ্জের হরিরামপুর থানাধীন বসন্তপুর বাগডাংনী দুর্গম চর এলাকার শরিফুল হঠাৎ করে সন্ন্যাসী বেশ ধারণ করেন।

তার সন্ন্যাসী হওয়াতে ২ বছর আগে তার স্ত্রী তাকে ছে’ড়ে চলে যায়। এসময় মেয়েটিও তার মায়ের সঙ্গে নাটোরে দীঘাপতিয়া পূর্ব হাগুরিয়া গ্রামে নানার বাড়িতে চলে যায়।

ঈদুল আজহার ৬ দিন আগে শরিফুল বিভিন্ন কৌশলে মেয়েকে বাড়িতে নিয়ে আসে। বাড়িতে আনার পর তিনি মেয়েটির ওপরে শা’রী’রিক ও মা’ন’সি’ক নি’র্যা’তন শুরু করে।

এক পর্যায়ে মেয়েকে ভ’য়-ভী’তি দে’খি’য়ে আ’টকে রেখে ধ”র্ষ”ণ করে। বাড়িতে লোকজন এলে মেয়েটির সঙ্গে কাউকে দেখা বা কথা বলতে দেয়নি বাবা শরিফুল।

শেখ নাজমুল আলম বলেন, মেয়েটি কৌশলে তার নানার-নানির সঙ্গে যোগাযোগ করে। পরে মা ও নানি মেয়েকে উদ্ধার করেন। পরে মেয়ে বা’দী হয়ে বাবার বি’রু’দ্ধে নাটোরের বড়াইগ্রাম থানায় নারী ও শিশু নি’র্যা’তন দমন আইনে মা’ম’লা করে।

সিআইডি জানায়, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে শরিফুল মেয়েকে ধ”র্ষ”ণের কথা স্বীকার করে।মা’ম’লার অভি’যো’গে মেয়েটি জানায়, তার ওপরে শারী’রি’ক নি’র্যা’ত’নের কথা তার দাদা-দাদিকে জানালে বিষয়টি সমাজের কাউকে বলতে নি’ষে’ধ করেন তারা।

এক প্রশ্নের জবাবে শেখ নাজমুল আলম বলেন, ‘আমরা শরিফুল এর সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি মা’ন’সিক অ’সুস্থ না। সুস্থ মস্তিষ্কে তিনি তার মেয়েকে এভাবে নি’র্যা’তন করেছে।’