চাকরির আশায় বসে না থেকে বনে গেলেন উদ্যোক্তা

বর্তমানে চাকরি খুঁজে পাওয়া আর সোনার হরিণ পাওয়া প্রায় একই কথা। তারপরও চাকরির পেছনে ছুটছেন লাখ লাখ তরুণ। করোনা মহামারির কারণে দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ, হতাশায় ডুবে আছেন চাকরি প্রত্যাশীরা। তবে অনেকেই আবার চাকরির আশায় বসে না থেকে বনে যাচ্ছেন উদ্যোক্তা।তেমনই একজন লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জ উপজেলার মো. জাহিদুল ইসলাম (Md Jahidul Islam)। মাত্র ২২ বছর বয়সেই ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে সফলতার সঙ্গে বিচরণ করছেন।

শৈশবকাল থেকে নিত্যনতুন চিন্তাভাবনায় মগ্ন থাকতেন জাহিদুল ইসলাম। অনলাইন জগতের প্রতি অনেকটাই আসক্তি ছিল বলা যায়। তবে অনলআইনে মূল্যবান সময়কে অপব্যবহার না করে কাজে লাগান জাহিদুল। শিখে নেন ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের নানা কাজ। তরুণ বয়সেই একজন সফল ডিজিটাল মার্কেটার হতে লড়ে যাচ্ছেন এই তরুণ।

উদ্যোক্তা জাহিদুল যুগান্তরকে বলেন, সফল হওয়ার চেষ্টায় যখন একজন মানুষ লড়ে যায়, তখন অনেকে অনেকরকম নেতিবাচক মন্তব্য করেন। তবে সফল হতে হলে এ সকল মন্তব্যে ফোকাস না করে নিজের নির্দিষ্ট লক্ষ্যর দিকে এগিয়ে যেতে হবে। আপনি সফল হওয়ার আগে কংগ্রাচুলেশনস জানানোর মত লোক খুঁজে পাবেন না এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু যখন সফল হবেন তখন কংগ্রাচুলেশনস জানানোর মত লোকের অভাব হবে না।

তিনি জানান, উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য অনেক বেশি টাকা থাকা লাগবে, অনেক শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকা লাগবে- এইসব একপ্রকার মানুষের আত্মবিশ্বাস হারানোর মতো কথা। আমি মনে করি. একজন উদ্যোক্তা হতে হলে থাকতে হবে নিজের প্রতি নিজের অটল বিশ্বাস। সেই সঙ্গে করতে হবে কঠোর পরিশ্রম আর কাজে লাগাতে হবে নিজের মেধাশক্তিকে।

করোনাকার মধ্যেই চলতি বছরের ২৮ মার্চ জাহিদুল ইসলাম(Md Jahidul Islam) প্রতিষ্ঠা করেন রবিন আইটি(Robin It) নামক একটি অনলাইন ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান। তরুণদের নিয়ে পরিচালিত প্রতিষ্ঠানটির মূল লক্ষ্য নবীন কন্টেন্ট ক্রিয়েটরদের বুস্ট বা প্রমোটের মাধ্যমে সাহায্য করা। পাশাপাশি সার্চ ইঞ্জিন, ওয়েব ডিজাইনিং, ওয়েব ডেভলপিংয়েরও কাজ করেন তারা।

নিজের কাজ সম্পর্কে জাহিদুল জানান, আমাদের জীবন এখন অনেকটাই অনলাইন নির্ভর। বিশেষ করে করোনা আসার পর থেকেই অনলাইন নির্ভরতা আরও বেড়েছে। অনলাইনভিত্তিক নতুন নতুন কন্টেন্ট ক্রিয়েটর তৈরি হচ্ছেন। তবে অনেক কন্টেন্ট ক্রিয়েটর ভালো কিছু বানিয়েও জনপ্রিয়তা পাচ্ছেন না, কেবলমাত্র ডিজিটাল মাকেটিংয়ে অজ্ঞতার কারণে। নতুনদের কথা ভেবেই আমার প্রতিষ্ঠানটি চালু করেছি।