আমির-কিরণের বিচ্ছেদের নেপথ্যে কি এই অভিনেত্রী?

১৫ বছর দীর্ঘ দাম্পত্য জীবনের ইতি টানছেন বলিউডের অন্যতম ‘পারফেক্ট কপল’ আমির খান ও কিরণ রাও। শনিবার সকালে এমনটাই জানা যায় ভারতের স্থানীয় গণমাধ্যমগুলোর খবরে। সকালে যৌথ বিবৃতি দিয়ে ডিভোর্সের ঘোষণা করে আমির-কিরণ জানান, বেশ কিছুদিন আগেই বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছিলেন তাঁরা,

সঠিক সময়ে এই খবর ঘোষণা করলেন। বিচ্ছেদের কারণ হিসেবে স্পষ্টভাবে কিছু না জানালেও তাঁরা বলেছেন- ‘আমরা আমাদের জীবনের একটা নতুন অধ্যায় শুরু করতে চলেছি- সেখানে আমরা স্বামী, স্ত্রী নই। তবে আমরা বাবা-মা থাকব এবং অবশ্যই একে অপরের পরিবার থাকব’।

আমির-কিরণের বিচ্ছেদের ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই টুইটার ট্রেন্ডিংয়ে ফাতিমা সানা শেখ! কী কারণে ট্রেন্ড করছেন আমিরের দঙ্গল গার্ল? জীবনের এই নতুন অধ্যায়ে কি নতুন সঙ্গী বেছে নিয়েছেন আমির? আর সেই সঙ্গীর নাম কি ফাতিমা সানা শেখ? নেটিজেনদের একটা বড়ো অংশের দাবি ফাতিমার প্রেমে পড়েই নাকি কিরণের সঙ্গে নিজের সংসার ভাঙার সিদ্ধান্ত নিলেন আমির খান।

দুজনের প্রেমের জল্পনা নতুন নয়। আজ ফের নেটমাধ্যমে চর্চায় সেই গুঞ্জন। দঙ্গল ছবিতে আমিরের মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন ফাতিমা। এরপর ‘ঠগস অব হিন্দুস্তান’ ছবিতে একসঙ্গে কাজ করে এই জুটি। সেইসময় থেকেই দুজনের ঘনিষ্ঠতা নিয়ে ফিসফিসানি শুরু হয়েছিল।

ফাতিমার প্রতি আমিরের দুর্বলতাই নাকি কিরণ-আমিরের সম্পর্কের মাঝে ফাটল ধরিয়েছে, দাবি নেটিজেনদের। অনেকেই আমিরের বিয়ে ভাঙার ট্রেন্ডের প্রসঙ্গ টেনেও অভিনেতাকে একহাত নিচ্ছেন। তাঁদের দাবি, কিরণের প্রেমে পড়েই রিনা দত্তকে ডিভোর্স দিয়েছিলেন আমির,

সেই ফর্মুলা মেনেই এবার ফাতিমার প্রেমে পড়ে কিরণের সঙ্গে দাম্পত্য সম্পর্কে ইতি টানলেন। তবে ফাতিমার সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে আমির কোনোদিনই মুখ খোলেননি। কিন্তু এক সাক্ষাত্কারে ফাতিমা বলেছিলেন, ‘আমির স্যারকে আমার ভালো লাগে। কিন্তু আমাদের মধ্যে কোনো প্রেমের সম্পর্ক নেই। বরং তাঁকে আমি মেন্টর মনে করি’।

২০০৫ সালের ২৮ ডিসেম্বর বিবাহ বন্ধনে বাঁধা পড়েছিলেন আমির-কিরণ। বিয়ের ছয় বছর পর জন্ম হয় এই জুটির একমাত্র সন্তান আজাদ রাও খানের। কিরণের আগে রিনা দত্তের সঙ্গে সংসার করেছেন আমির। প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে তাঁর দুই সন্তান- ইরা খান ও জুনেইদ খান।