আমা’রে আমা’র বাপেই জন্ম দেছে

বরগুনার আ’লো’চিত শা’হনেওয়া’জ শরী’ফ ওরফে রিফাত শরীফ হ’ত্যা’ ‘মা’ম’লায় প্রধান আ’সা’মি ছিলেন নয়ন ব’ন্ড। সেই ব’ন্ড ছিলেন আ’য়ে’শা সিদ্দিকা মিন্নির প্রথম স্বামী; যা গো’পনী’য় ছিল। পরে স্ত্রী’ মিন্নির পরি’কল্পনা’য় দ্বিতীয় স্বা’মী রিফাত শরী’ফ’কে প্র’কা’শ্যে দিনে-দুপুরে কু‌‌’পি’য়ে হ’ত্যা’ করে প্র’থম স্বা’মী নয়’ন ব’ন্ড।

আর এ ঘট’নার ভিডিও ভা’ই’রাল হতেই দেশ’জুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হ’য়েছিল। যখন রিফাত শ’রী’ফের মৃ’ত্যু’ হয় তখন মি’ন্নিকে শেষ এসএমএস পা’ঠান নয়ন ব’ন্ড। সেই এসএমএস খুঁ’জে পেয়ে’ছিল ত’দ’ন্তকা’রী দলের সদস্যরা। ত’দন্ত’কা’রী দলে’র এক স’দস্য সেই এসএমএস-এর কন’টেন্ট গণ’মাধ্যম’কে জানি’য়ে’ছেন।

নাম প্রকাশে অ’নিচ্ছু’ক ত’দন্তে সংশ্লি’ষ্ট এক কর্মক’র্তা এ প্রতিবেদকে জানান, নয়ন ব’ন্ডের সঙ্গে গো’প’নে বিয়ে হ’য়েছি’ল আ’য়শা সি’দ্দিকা মি’ন্নির। আর সেই বিয়ে গো’পন করেই রিফাত শরী’ফে’র সঙ্গে সংসার পা’তেন মিন্নি। গো’পন স’ম্প’র্ক থাকা’য় ন’য়ন ব’ন্ড তার মায়ে’র নামে রেজি’স্ট্রেশন করা একটি সিম মি’ন্নিকে দেন। মূলত রি’ফাত শরী’ফকে বিয়ে করার পরও সেই সিম দি’য়েই নয়ন ব’ন্ডের সঙ্গে যোগা’যোগ করতেন মিন্নি। এ সিম ছাড়াও আরো ক’য়েক’টি সিম দি’য়ে নয়ন ব’ন্ডের সঙ্গে যো’গাযো’গ করতেন মিন্নি।

এ কর্ম’ক’র্তা আ’রো বলেন, ঘট’নার দিন সকাল ৯ টা ৮ মিনিটে নয়ন ব’ন্ডের মা’য়ের রে’জি’স্ট্রেশন করা সিম দিয়েই নয়ন ব’ন্ডের সঙ্গে ছয় সে’কে’ন্ড ক’থা বলেন মিন্নি। এ কলের ৩০ মিনিট পর একই ন’ম্বর দি’য়ে নয়ন ব’ন্ডকে আ’বারো কলে দেন মিন্নি। এ সময় ৩৫ সে’কে’ন্ড কথা বলেন। এ কলেরও ২৮ মিনিট পর নয়ন ব’ন্ড মি’ন্নির কাছে থাকা ওই ন’ম্বরটি’তেই আ’বার কল দেন। তখন তারা মাত্র ৪০ সেকেন্ড কথা বলেন।

এরপর স’কাল সো’য়া ১০টায় রিফাত শরীফের ওপর হা’মলা করে নয়ন ব’ন্ড নেতৃত্বাধীন ‘জিরো জি’রো সে’ভেন’ বাহিনী। হা’মলার পর বেলা ১১টা ৩১ মি’নিটের স’ময় মি’ন্নিকে একটি এসএমএস পাঠা’ন নয়ন ব’ন্ড। বিকেল ৩টায় মিন্নি’র সঙ্গে এক মিনিট ২০ সেকেন্ড কথা বলে’ন নয়ন ব’ন্ড।

পু’লি’শ কর্ম’ক’র্তা জানান, ত’দ’ন্তের স্বা’র্থে মিন্নি ও নয়ন ব’ন্ডের ব্যব’হৃত ন’ম্বরের কললিস্ট ও এসএমএস কন’টেন্ট প্রযু’ক্তি’র মাধ্যমে উ’দ্ধা’র করা হয়। এগুলো যা’চাই-বা’ছাই শেষে রিফাত শ’রীফ মা’রা যাওয়ার পর মি’ন্নির কাছে একটি এসএমএস পাঠান নয়ন ব’ন্ড। বি’কেল ৪টা’র কিছু সময় আগে এসএ’মএ’সটি পা’ঠানো হ’য়েছিল। সেই এসএমএসটিতে লে’খা ছিল, আমা’রে আমা’র বাপেই জন্ম দেছে।

এসএমএ’সের বিষ’য়ে রি’মা’ন্ডে মিন্নি জানান, রিফা’ত শরীফ’কে হ’ত্যা’র প’রিক’ল্পনার সময় নয়ন ব’ন্ডকে চ্যালেঞ্জ দেন মিন্নি। নয়ন ব’ন্ডকে মি’ন্নি বলেন, ‘তুমি যদি রিফাত শ’রীফকে মা’র’তে পার, তাহলে বুঝ’বো তোমা’রে তোমা’র বাপেই জন্ম দিছে।’ মূলত চ্যালেঞ্জ পূরণ করেই মিন্নিকে এসএমএসটি পা’ঠান নয়ন ব’ন্ড।

পু’লিশ কর্মক’র্তা জানান, মা’য়ের নামে রেজিস্ট্রেশন করা নম্ব’রটি এক সময় ব্যব’হার করতেন নয়ন ব’ন্ড। পরে সেই নম্বরটি পরি’বর্তন করে মি’ন্নিকে দেন তিনি।

বুধবার দুপু’রে রিফা’ত শ’রীফ হ’ত্যা’ মা’ম’লায় ছয়জনের মৃ’ত্যুদ’ণ্ড ও চারজনকে খালাসের রায় দেন বর’গুনা জে’লা ও দায়রা জজ আ’দালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান। রায়ে দ’ণ্ডপ্রাপ্ত’ প্রত্যে’ককে ৫০ হাজার টাকা করে জ’রিমানা করা হয়। মৃ’ত্যু’দ’ণ্ডপ্রা’প্তরা হলেন- আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি, রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি, আল কাইয়ুম ওরফে রাব্বি আকন, মোহাই’মি’নুল ইস’লাম সিফাত, রেজও’য়ান আ’লী খান হৃদয় ওরফে টিক’ট’ক হৃদয়, মো. হাসান। খালাস প্রাপ্তরা হলেন- রা’ফিউল ইস’লাম রাব্বি, মো. সাগর, কাম’রুল ইস’লাম সায়মুন, মো. মু’সা।

২০১৯ সালের ২৬ জুন বরগুনা সরকা’রি কলে’জের সামনে নয়ন ব’ন্ড ও তার সহযোগী স’ন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে রাম’দা দিয়ে কু‌‌’পিয়ে রি’ফাত শরী’ফকে গুরুতর আ’হ’ত করে। এরপর বী’র’দর্পে অ’স্ত্র উঁচিয়ে এলাকা ছা’ড়েন তারা। গুরুতর আ’হ’ত রিফা’ত বরি’শাল শের-ই বাংলা মেডিকেল ক’লেজ হা’সপাতা’লে ওইদি’নই মা’রা যান।

ওই ব’ছরের ১ সে’প্টেম্বর রিফাত শরী’ফ হ’ত্যা’ মা’ম’লায় রি’ফাতের স্ত্রী’ মিন্নি’সহ ২৪ জনের বি’রু’দ্ধে বর’গুনা’র সিনিয়র জুডি’শিয়া’ল ম্যা’জি’স্ট্রেট আ’দালতে চা’র্জ’শিট দেয় পু’লিশ। এ’কইস’ঙ্গে রি’ফাত হ’ত্যা মা’ম’লার এক নম্বর আ’সা’মি নয়ন ব’ন্ড ব’ন্দু’ক’যু’দ্ধে নি’হত হওয়ায় তাকে মা’মলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

চলতি ব’ছরের ১ জানুয়ারি রি’ফাত হ’ত্যা’ মা’ম’লার প্রা’প্তবয়’স্ক ১০ আ’সা’মির বি’রু’দ্ধে চার্জ গঠন করে বর’গুনার জে’লা ও দায়রা জজ আ’দালত। ৮ জা’নুয়া’রি একই মা’ম’লার অ’প্রা’প্তবয়স্ক ১৪ আ’সা’মির বি’রু’দ্ধে চার্জ গঠন করে বর’গুনার শি’শু আ’দালত।