ফিলিস্তিনিদের উপর নির্যাতন করলে তুরস্ক চুপ থাকবে নাঃ ইসরাইলের প্রেসিডেন্টকে এরদোগান

গ্রিসের পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিকোস ডেন্ডিয়াস প্রশংসায় ভাসিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগানকে। তুর্কি প্রেসিডেন্ট সম্পর্কে তিনি বলেন, এরদোগান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ নেতা, যিনি অনেক কিছুই করেছেন। নতুন খবর হচ্ছে, তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান ইসরাইলের

নতুন প্রেসিডেন্ট আইজ্যাক হেরজোগের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন। দুই দেশের প্রেসিডেন্টের মধ্যে এই টেলিফোন আলাপকে বিরল ঘটনা উল্লেখ করে কাতারভিত্তিক আল জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, দীর্ঘ বছর বৈরি সম্পর্ক থাকার পর সাবেক মিত্র দুই দেশের প্রেসিডেন্ট ফোনালাপ করলেন।

এর আগে শনিবার প্রেসিডেন্ট এরদোগান ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেন। ফিলিস্তিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে আলাপকালে এরদোগান বলেন, ফিলিস্তিনে ইসরাইলি নিপীড়নের বিরুদ্ধে তুরস্ক কখনও চুপ থাকবে না।

আল জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, ইসরাইল ও তুরস্ক এক সময় আঞ্চলিক অংশীদার ছিল। কিন্তু গত ১০ বছর ধরে দুই দেশের মধ্যে তিক্ত সম্পর্ক বিরাজ করছে। তুরস্ক সরকার প্রায় ইসরাইলের ফিলিস্তিন নীতি নিয়ে সমালোচনা করে থাকে। ইসরাইলের প্রেসিডেন্ট হেরজোগের সঙ্গে টেলিফোন আলাপে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগান মধ্যপ্রাচ্যের নিরাপত্তা

এবং স্থিতিশীলতা রক্ষায় দুইদেশের সম্পর্ক ব্যাপক গুরুত্বপূর্ণ বলে উল্লেখ করেন। তুরস্কের প্রেসিডেন্টের দপ্তর থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে বলা হয়, প্রেসিডেন্ট এরদোগান ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে টেলিফোন আলাপে প্রাকৃতিক শক্তি (এনাজি), পর্যটন এবং প্রযুক্তিতে দুই দেশের পারস্পারিক সহযোগিতার ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে বলে উল্লেখ করেন।

অন্যদিকে, ইসরাইলের প্রেসিডেন্টের দপ্তর থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, মতামতের ভিন্নতা থাকা সত্ত্বেও বিশেষ করে ইসরাইল-ফিলিস্তিনি দ্বিরাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানে দুই দেশের প্রেসিডেন্ট সংলাপের ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন। গত সপ্তাহে ইসরাইলে নতুন প্রেসিডেন্ট আইজ্যাক হেরজোগ প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। গত জুনে ইসরাইলের সংসদ নেসেটে ভোটে তিনি প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন।