ধর্মীয় বক্তা নামধারী কিছু ব্যক্তি করোনা ছড়িয়ে দিতে সহযোগিতা করেছে

দিন যতই যাচ্ছে করোনা ততই বেড়ে চলছে। তবে দুঃখের বিষয় হলেও সত্য যে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে না একদল মানুষ। এভাবে চলতে থাকলে করোনা অনেক ভয়াবহ রুপ ধারণ করবে বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা। নতুন খবর হচ্ছে, ধর্মীয় বক্তা নামধারী কিছু ব্যক্তি করোনাভাইরাস ছড়িয়ে দিতে সহযোগিতা করেছে বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ।

শনিবার (১৭ জুলাই) রাজধানীর বেরাইদ এ কে এম রহমতউল্লাহ স্টেডিয়ামে, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, এক শ্রেণির ধর্ম ব্যবসায়ী মুসলমানদের করোনা হবে না বলে জাতিকে বিভ্রান্ত করে মহামারির দিকে ঠেলে দিয়েছে।

সরকার করোনার শুরু থেকেই সবাইকে মাস্ক পরে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে বলেছে। তিনি বলেন, সরকার মানুষকে সচেতন করে করোনা নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করেছে। তবে কিছু কথিত ধর্মীয় বক্তা মুসলমানদের করোনা হবে না বলে জাতিকে বিভ্রান্ত করেছে। তারা এও বলেছে, মুসলমানদের করোনা হলে কোরআন মিথ্যা হবে।

আওয়ামী লীগের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, এই ধর্মীয় বক্তা নামধারী ব্যক্তিদের বিচারের আওতায় আনতে হবে। ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে ১০০০ অসহায় ও দরিদ্র পরিবারের মাঝে ৫ কেজি চাল, ১কেজি ডাল, ১ কেজি আলু, ১ কেজি তেল, ১ কেজি লবণ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রদত্ত খাবার ও ঈদ সামগ্রী তুলে দেওয়া হয়।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য এ কে এম রহমতউল্লাহ, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামীলীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি বশির উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক রানা, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, দফতর সম্পাদক উইলিয়াম প্রলয় সমদ্দার বাপ্পি, সহ-দফতর সম্পাদক আওয়াল শেখ, নির্বাহী সদস্য হিমাংশ কিশোর দত্ত প্রমুখ।