লকডাউনের মধ্যেই হবে সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচন

লকডাউনের মধ্যেই ২৮ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে সিলেট-৩ (দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ ও বালাগঞ্জ) আসনের উপনির্বাচন। উপনির্বাচন উপলক্ষে সিলেট-৩ আসন তথা পুরো নির্বাচনী এলাকা একদিনের জন্য সরকার ঘোষিত বিধি-নিষেধের আওতামুক্ত থাকবে। রোববার এক আদেশে এমনটি জানিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

ইসি সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকারকে আদেশের চিঠি পাঠিয়েছেন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মো. রেজাউল ইসলাম।এতে বলা হয়েছে- নির্বাচন কমিশন একাদশ জাতীয় সংসদের ২৩১ সিলেট-৩ শূন্য আসনের নির্বাচনের দিন ধার্য করেছে এবং ২৮ জুলাই সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী এলাকা বিধি-নিষেধের আওতাবহির্ভূত রাখার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

এ অবস্থায় যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন করে আগামী ২৮ জুলাই অনুষ্ঠেয় একাদশ জাতীয় সংসদের ২৩১ সিলেট-৩ আসনের নির্বাচন, সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী এলাকায় নির্বাচন সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন কার্যক্রম এবং এতদসঙ্গে সংযুক্ত সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন অফিস-স্থাপনা নির্দেশক্রমে এ বিধি-নিষেধের আওতাবহির্ভূত রাখা হলো।

সিলেট-৩ আসনটি দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ ও বালাগঞ্জ উপজেলা নিয়ে গঠিত। এতে ৩ লাখ ৩০ হাজারের মতো ভোটার রয়েছেন। এদিকে নির্বাচনকে সামনে রেখে করোনা মহামারির মাঝেও ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন প্রার্থীরা। ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ছুটছেন তারা। দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি। তিন উপজেলায় ভোটারদের মধ্যে বইছে উৎসাহ-উদ্দীপনা।

ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট চাচ্ছেন প্রার্থীরা। হাটবাজারের চায়ের দোকানগুলো নির্বাচনী আলাপে মুখর হয়ে উঠেছে। করোনার এ পরিস্থিতিতে প্রচারে প্রার্থী ও সমর্থকদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রচারণা চালানোর কথা থাকলেও কেউই তা মানছেন না। জনসমাগম করে করছেন সভা, বৈঠক ও গণসংযোগ।

ফেঞ্চুগঞ্জে বৃহস্পতিবার ২৫ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। ওই দিন বিকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ৫৯ জনের নমুনা সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। এতে ২৫ জনের রিপোর্ট পজিটিভ আসে। ফেঞ্চুগঞ্জে করোনার সংক্রমণ দুই সপ্তাহ ধরে বৃদ্ধি পাওয়ায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে জনমনে।

সিলেট-৩ উপনির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা হলেন-হাবিবুর রহমান (নৌকা), আতিকুর রহমান (লাঙ্গল), জুনায়েদ মুহাম্মদ মিয়া (ডাব) ও শফি আহমদ চৌধুরী (মোটরগাড়ি)। গত ১১ মার্চ সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান। তার মৃত্যুতে আসনটি শূন্য হয়।