ইলসাম গ্রহণের ৪০ বছর পর প্রথম হজে আমেরিকান নারীর কান্না

ইসলামের মূল স্তম্ভসমূহের পঞ্চমটি হল হজ্বে বায়তুল্লাহ। ঈমান, নামায, যাকাত ও রোযার পরই হজ্বের অবস্থান। হজ্ব মূলত কায়িক ও আর্থিক উভয়ের সমন্বিত একটি ইবাদত। তাই উভয় দিক থেকে সামর্থ্যবান মুসলিমের উপর হজ্ব পালন করা ফরয।

নতুন খবর হচ্ছে, করোনাকালে দ্বিতীয় বারের মতো ইসলামের গুরুত্বপূর্ণ বিধান পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মাত্র ১০ দিন অনলাইন আবেদনের সুযোগে সাড়ে পাঁচ লাখের বেশি লোক হজের জন্য আবেদন করেছেন। ১৮ বছর থেকে ৪০ বছর বয়সীদের মধ্যে যারা ইতিপূর্বে কখনো হজ পালনের সুযোগ পাননি তাদেরকে এবারের হজের জন্য নির্বাচন করা হয়।

তেমনি একজন সৌভাগ্যবান নারী হলেন আমেরিকান বংশোদ্ভূত সৌদি নিবাসী নওমুসলিম আমিরাহ উইলসন। তিনি দীর্ঘ ৪০ বছর আগে ইসলাম গ্রহণ করেছেন। কিন্তু নানা কারণে এতদিন যাবত হজ পালনের সুযোগ পাননি। করোনাকালে হজ পালন করতে পেরে আনন্দ-উচ্ছ্বাসে কান্না করে ফেলেন।

সৌদির হজ ও ওমরাহ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রকাশিত ভিডিও সাক্ষাতকারে আমিরাহ বলেন, ‘করোনাকালে মাত্র ৬০ হাজার মুসলিম হজ পালনের সুযোগ পাবেন। আমিও তাদের মধ্যে হতে পারব এই আশা ছিল না আমার। কিন্তু নিবন্ধনের পর নির্বাচিত হওয়ার মেসেজ দেখতে আমার স্বামীকে বার বার এর সত্যতা যাচাইয়ের জন্য বলেছি।’

মহান আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে আমিরাহ বলেন, ‘মহান আল্লাহর প্রতি আমি অত্যন্ত কৃতজ্ঞ যে তিনি আমাকে হজ পালনের সুযোগ দিয়েছেন। গত দেড় বছর যাবত আমি সৌদিতে অবস্থান করছি। তাই আমি মহাসৌভাগ্যবানও বটে। ইসলাম গ্রহণের দীর্ঘ ৪০ বছর পর এবারই প্রথম আমি হজ পালন করছি। বিষয়টি আমার খুবই বিস্ময় ও আনন্দের।’

আমিরাহ আরো জানান, ‘আমি একটি খাতা রেখেছি। তাতে হজের সময়ের পঠিত দোয়াগুলো লিখে রাখছি। হজের পবিত্র স্থানগুলোতে দোয়াগুলো পাঠ করব। মহান আল্লাহর গুরুত্বপূর্ণ এ বিধান পালন সুযোগ পেয়ে সত্যি আমি অভিভূত।’

করোনা সংক্রমণ রোধে এবার সৌদিতে অবস্থানরত ১৫০ টি দেশের মাত্র ৬০ হাজার নাগরিক অংশ পালন করেছেন। গত বছর করোনা মহামারি প্রাদুর্ভাবের পর মাত্র ১০ হাজার মুসলিম হজ পালন করেছেন। অথচ সর্বশেষ ২০১৯ সালে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ২৫ লাখের বেশি মুসলিম হজ পালন করেছেন।