পৌর কাউন্সিলরদের মহড়া, শহরে অটোরিকশাও চলবে না

ভোলায় করোনা আক্রান্তের হার ভয়াবহ রূপধারণ করায় শহরে দোকানপাট বন্ধ রাখার পাশাপাশি অটোরিকশাও চলতে দেয়া হবে না। এমন ঘোষণা দিয়ে মঙ্গলবার পৌর কাউন্সিলররা মহড়া দেন। জেলা শহরের ৯ ওয়ার্ড এলাকাকে নিরাপদ রাখতে এমন কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে বলে জানান সাবেক প্যানেল মেয়র ও ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শাহে আলম।

তিনি জানান, এক মাস আগেও যেখানে ৮-১০ জন আক্রান্ত হতো এখন শহরেই প্রতিদিন আক্রান্তের হার শতাধিক। জেলায় আক্রান্ত হচ্ছে প্রতিদিন ১২০ থেকে ১৪০ জন। মারাও যাচ্ছেন অনেকে। এমন পরিস্থিতিতে পৌর মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানের সম্মতিতে লকডাউন সফল করতে সকল ওয়ার্ড এলাকাকে নিয়ন্ত্রণ করার পরিকল্পনা নেয়া হয়। মহড়ায় অংশ নেওয়ার পাশাপাশি বিভিন্ন পয়েন্টে নির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন-

পৌরসভার নির্বাহী কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান, কাউন্সিলরদের মধ্যে মো. শাহেআলম, মনজুরুল আলম, সালাউদ্দিন লিংকন, ইফরানুর রহমান মিথুন মোল্লা, মো. ওমর ফারুক ও মো. মিজানুর রহমান। এদিকে কঠোর লকডাউনের ৫ দিনেও শহরের হাটবাজার ও রাস্তায় মানুষের অবাধ বিচরণ ছিল। এতে ভেঙে পড়ে স্বাস্থ্যবিধি। গ্রাম থেকে যাত্রী নিয়ে শহরে আসছে রিকশা, অটোরিকশা।

২০ থেকে ৩০ জনকে জরিমানা করেও নিয়ন্ত্রণ করতে পারছিলেন না নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবি আব্দুল্লাহ খান জানান, বাজার এলাকায় তাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তারা অভিযান করে ফিরে আসতেই আবার স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করে দোকানপাট খুলে বসেন দোকানিরা। প্রতিদিন এমন পরিস্থিতিতে এবার মাঠে নামলেন কাউন্সিলররা। জনপ্রতিনিধিরা সক্রিয় হলে লকডাউন সফল করা সম্ভব হবে বলে জানান জেলা প্রশাসক মো. তৌফিক ইলাহী চৌধুরী।