নির্বাচনে কোথাও কোনো অসুবিধা হয়নি

ঢাকা ৫ ও নওগাঁ-৬ আসনের উপনির্বাচনের ভোটগ্রহণ সুষ্ঠু হয়েছে বলে দাবি করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা। এ ব্যাপারে তিনি বলেছেন, ‘নির্বাচনে কোথাও কোনো অসুবিধার সৃষ্টি হয়নি। আমাদের কাছে কোনো অভিযোগ নেই।’ আজ শনিবার দুই আসনে উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার কিছুক্ষণ আগে আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেন সিইসি।

কে এম নূরুল হুদা বলেন, ‘জাতীয় নির্বাচনে সারা দেশে ভোট হয়। এই খণ্ড নির্বাচনে ভোটারদের আগ্রহ কম থাকে। এ নির্বাচনে সংসদ সদস্য হওয়ার জন্য সরকার পরিবর্তনের সুযোগ নেই।’

নির্বাচনে আগ্রহ কমের বিষয়ে ভোটাররা আতঙ্কিত বলে মন্তব্য করেন সিইসি। তিনি বলেন, ‘দুই/আড়াই বছরের জন্য নির্বাচিত হবেন সেই জন্য হয়তো প্রার্থী বা ভোটারদের মধ্য তেমন আগ্রহ নেই। পাশাপাশি করোনার একটি বিষয় তো রয়েছে। এজন্য মানুষ আতঙ্কিত। মানুষ যেতে চায় না এ রকম একটা অবস্থা তো আছেই। এর মধ্যেও নির্বাচনের ট্রেন্ড ভালো।’

করোনাভাইরাসের সময় ঢাকা ৫ ও নওগাঁ-৬ আসনে অনুষ্ঠিত উপনির্বাচনে সার্বিক সুরক্ষার ব্যবস্থা নেয় নির্বাচন কমিশন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সরবরাহ করা হয়েছে অতিরিক্ত মাস্ক। ছিল স্যানিটাইজেশন-হ্যান্ডওয়াশের ব্যবস্থাও। বারবার জীবাণুমুক্ত করার ব্যবস্থা করা হয়েছিল ইভিএমের ফিঙ্গার প্রিন্টের জায়গাটি।

সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় সিইসি হুদা বলেন, ‘ভোটারদের মধ্যে ইভিএম নিয়ে অনাগ্রহ এখন আর নেই। ইভিএমে তাদের অনীহা নেই। আগ্রহ আছে।’ নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত ছিল ইভিএম ব্যবহারের। সিইসি বলেন, ‘আমরা ব্যালটের পরিবর্তে ইভিএমে ভোটগ্রহণে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি।’

ঢাকা-৫ আসনে ভোটারদের বাধা দেওয়া ও আইডি কার্ড কেড়ে নেওয়া হয়েছে-অভিযোগের ব্যাপারে নুরুল হুদা জানান, এমন কোনো খবর তার কাছে নেই। একটি মাত্র জায়গায় কেন্দ্রের বাইরে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার খবর তারা পেয়েছিলেন, যা সঙ্গে সঙ্গে তা নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে।