ঐশ্বরিয়ার সঙ্গে হোটেলে একা অমিতাভ, সময় কাটাতেই

ঐশ্বর্য রাই, বচ্চন পরিবার, অমিতাভ, জয়া। বাইরে থেকে বচ্চন বংশের চাকচিক্কো দেখে মুগ্ধ হয় অসংখ্য সিনেপ্রেমীরা। আদর্শ পরিবার হিসাবে চিহ্নিত করা হয় তাঁদের।

যেখানে বলিউড কিংবা অন্যান্য গ্ল্যামার ইন্ডাস্ট্রির মধ্যে সম্পর্কের ভাঙন, তু তু-ম্যঁয় ম্যঁয় সম্পর্ক, বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক এই সব খবরেই ভরে যায় সংবাদ শিরোনাম।

বচ্চন পরিবার সেখানে একেবারে পারফেক্ট। অন্তত পাপারাৎজির সামনে তাঁরা তেমনই লাগেন। তবে একাধিক সিনেপ্রেমীদের কাছে এই বিষয়টি পুরোপুরি দেখনদারি।

বচ্চন পরিবারে একের পর এক বিভিন্ন ঘটনাই ঘটতে থাকে যা খবরের পাতায় উঠে এলেও ধামাচাপা দিয়ে দেন পরিবারের সদস্যরাই।

গুজবে কান দিলে, জয়া বচ্চনের সঙ্গে শ্বেতা বচ্চনের সম্পর্ক মোটেই ভাল নয়। মা মেয়ের নাকি মুখ দেখাও বন্ধ। এছাড়া জয়া বচ্চনের সঙ্গে নাকি অমিতাভে সম্পর্কেও বহু আগে ধরেছিল চিড়। যা আজও মেটেনি।

অন্যদিকে শ্বেতার সঙ্গে সম্পর্ক মসৃণ নয় ঐশ্বর্যেরও। তাঁদেরও মুখ দেখা দেখি বন্দ। শ্বেতার অনুমান ভাইকে তাঁর থেকে দূরে করে দিয়েছেন ঐশ্বর্য।

তবে এই সমস্ত সূত্রের খবরের মধ্যে যেটি সকলের চোখ কপালে তুলেছিল তা হল ঐশ্বর্য অমিতাভের সম্পর্ক। অভিষেকের সঙ্গে সম্পর্ক থাকার আগে নাকি পরে অমিতাভের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ ছিলেন ঐশ্বর্য সে বিষয় আজও কিছুই স্পষ্ট নয়।

অমিতাভের সঙ্গে ঐশ্বর্যের সম্পর্কে প্রেমের নাকি স্নেহের তা নিয়ে আজও রয়েছে সন্দেহ। তবে কাজরা রে গানের শ্যুটিংয়ের সময় সন্দেহ দৃঢ় হয়।

একটি হোটেলের পুর ফ্লোর বুক করেছিলেন ঐশ্বর্যের জন্য। এই গানের শ্যুটিং চালকালীন সেই ফ্লোরে একান্তে সময় কাটিয়েছিলেন তাঁরা।

বলিউডের ডার্টি সিক্রেটের মধ্যে ঐশ্বর্য এবং অমিতাভের এই সম্পর্ক বারে বারে উঠে আসে। তবে আজ তাঁরা আদর্শ শশুড়-বউমা জুটি।