১৪ বছরে ২৮৬ টি বিয়ে করে বিশ্ব ‘রেকর্ড’ করলো লাল মনিরা হাটের জাকির

১৪ বছরে ২৮৬ টি বিয়ে করে বিশ্বরেকর্ড করলো লালমনিরাহাটের জাকির!ঘ’টনাটি লালমনিরহাট জে’লার, মাত্র ৩৫ বছর বয়সে সে নাকি ২৮৬ স্ত্রীর স্বা’মী।

নাম তার জাকির হোসেন ব্যাপারী। তার কীর্তি ছাপিয়ে গেছে ফিল্মি দুনিয়াকেও।মাত্র ১৪ বছরে ২৮৬টি বিয়ে করে জাকির তাক লাগিয়ে দিয়েছে দুনিয়াকে।

বিয়ে করা তার তার নে’শা এবং পেশা। বিয়ের ইনকাম দিয়েই চলে প্র’তারক জাকিরের সংসার। তার গ্রামের বাড়ি লালমনিরহাট জে’লার আদিত্যপুর থানার দর্গাপুর।

পিতার নাম মত মনির হোসেন। বর্তমানে থাকেন ট’ঙ্গীর আইচপাড়ার আহসান মোল্লা রোডে।তার এই ‘প্তারণার কীর্তি সর্বপ্রথম জনসম্মুখে আসে ২০১৮ সালে এক

না’রীর করা র্ষণ ও প্র’তারণার মা’মলার মাধ্যমে। পরে এই মমলায় গ্রফতার হয়ে তার স্থান হয় শ্রীঘরে। কিন্তু জা’মিনে বের হয়ে আবারো সে ফিরে যায় তার বিয়ে করা

পুরনো পেশায়। পরে এক তরুণীর মা’মলায় আবারো এই ভণ্ডের জায়গা হয়েছে শ্রীঘরে। এরপর একে একে বহু না’রী সাহস করে তার বি’রু’দ্ধে মুখ খোলেন, মা’মলা করেন।

বিয়ে আর প্র’তারণার মধ্যে দিয়েই চলছিল রাব্বির জীবন। তিনি কোনও চাকরি করেন না। করেন না ব্যবসাও। তবুও চলাচল করেন দামি গাড়িতে।

দামি দামি পোশাক পরিধান আর পটু কথায় ভোলাতেন তরুণীদের।ম’হিলাদের স’’ঙ্গে ঘ’নিষ্ঠ অবস্থার ভিডিও তুলে ব্ল্যা’কমেলিং করেও সে টাকা-পয়সা হাতিয়ে নিত।

এমনকি তার ঔরসে জন্ম নিয়েছে এমন বেশ কয়েকটি শি’শুর পরিচয়ও পাওয়া গেছে। কিন্তু নিজ স’ন্তানের নি’ষ্পাপ মায়াবী চাহনিও তাকে এ’তটুকু দমাতে পারেনি এসব অ’পকর্ম থেকে।

এরপর তার নামে তেজগাঁও থানায় অ’ভিযোগ দা’য়ের হয়। পু’লিশ ত’দন্তে নেমে ঢাকার মনিপুরি পাড়া থেকে তাকে গ্রে’’ফতার করে। পু’লিশি জেরার

মুখে সে তার অ’পরাধের কথা স্বীকার করে। নিজেকে লন্ডনের এক বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রিধারী বলে জানাত। স’রকারি আধিকারিক, কখনও বেস’রকারি অফিসের অধিকর্তা বলে

পরিচয় দিত। দামি গাড়িতে চড়ত। পোশাকও ছিল দামী।উল্লেখ্য, ২০০৫ সালে ২১ বছর বসয়ে প্রথমবার বিয়ের পিঁড়িতে বসে সে। তারপর থেকে প্রতি মাসেই সে বিয়ে করত।

এই বিয়ের টাকা উপার্জনের এই চ’ক্রে সে সামিল করেছিল, নিজের আপন বোন, তার কথিত এক স্ত্রী শাপলা বেগম, নকল মৌলবি ও এক কাজিকে। চরমোনাই পীর ও মামুনুল হকের গ্রে”প্তার দাবি সিলেট জে’লা যুবলীগের

আবুল হোসেন, সিলেট প্রতিনিধি: ব’ঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের বিরোধিতা ও হু’মকি প্রদান করায় ইসলামী আন্দোলনের আমির সৈয়দ মুহা’ম্ম’দ রেজাউল করিম (চরমোনাই পীর)

ও হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের গ্রে”প্তার দাবি করেছে সিলেট জে’লা যুবলীগ।ভাস্কর্য নির্মাণের বিরোধীতার প্রতিবাদে সোমবার (৩০ নভেম্বর)

নগরীতে আয়োজিত এক বিক্ষোভ কর্মসূচী থেকে এমন দাবি জানিয়েছেন যুবলীগের নেতারা।রাজধানীর ধো’লাইপাড়ে ব’ঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ করছে সরকার।

এর বিরোধিতা করছে ধ’র্মভিত্তিক বেশ কয়েকটি দল। যাদের মধ্যে চরমোনাই পীর ও মামুনুল হক রয়েছেন। ব’ঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ করা হলে তা ভে’ঙ্গে বুড়িগ’ঙ্গা নদীতে ফেলে দেওয়ারও হু’মকি দিয়েছেন তারা।