চাকরি করা নয়, দেওয়ার জন্য তরুণদের প্রস্তুত থাকতে হবে: কাদের

চাকরি করার মানসিকতা ত্যাগ করে চাকরি দেওয়ার জন্য তরুণদের প্রস্তুত থাকতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, তরুণদের উদ্যোক্তা হয়ে ওঠার জন্য সরকার নানামুখী সুযোগ উন্মুক্ত করে রেখেছে।

আজ মঙ্গলবার সকালে এশিয়ান ইউনিভার্সিটির রজতজয়ন্তী অনুষ্ঠানে এই মন্তব্য করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি তাঁর সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন। সেতুমন্ত্রী তারুণ্যের অমিত শক্তি ও সম্ভাবনাকে চাকরির চৌহদ্দিতে বন্দী না করে স্বাধীন পেশা বেছে নেওয়ার আহ্বান জানান।

ওবায়দুল কাদের বলেন, তরুণেরাই আগামী দিনের বাংলাদেশ। তরুণেরাই বাস্তবায়ন করবে স্বাধীনতার স্বপ্ন। তাদের হাত ধরেই অঙ্কিত হবে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণের পথনকশা।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, জীবন মানে যুদ্ধ। যে জীবনে যুদ্ধ নেই, চ্যালেঞ্জ নেই, সে জীবন জীবন নয়। চলার পথে নানান বাধা আসবে, গতি হারাবে ঝড়ে।

কিন্তু এই সাময়িক ছন্দপতনে থেমে গেলে চলবে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন অদম্য প্রাণশক্তি দিয়ে। তিনি জয় করেছেন বাংলাদেশের সমান সুনীল সমুদ্রসীমা। সম্ভাবনার দ্বার উন্মুক্ত করেছেন ব্লু-ইকোনমির।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিশ্বব্যাংকের অপবাদের বিপরীতে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের সাহসী সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রধানমন্ত্রী প্রমাণ করেছেন বাঙালি বীরের জাতি।

একসময়ের তলাবিহীন ঝুড়ির বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বিস্ময় উল্লেখ করে সেতুমন্ত্রী বলেন, মাছে-ভাতে বাঙালির পরিচয় আবার বিশ্ব মাঝে তুলে ধরেছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, তাঁর দক্ষ ও যোগ্য নেতৃত্বে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আজকের প্রজন্ম মাদক, সাইবার অপরাধ, আকাশ সংস্কৃতির নেতিবাচক দিকসহ নানান চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে বেড়ে উঠছে। তাদের এসব অপরাধ থেকে দূরে থাকার আহ্বান জানান তিনি।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, করোনা মহামারি বিশ্বকে থমকে দিয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেও তার প্রভাব পড়ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার বিষয়টি সার্বক্ষণিক মনিটরিং করছে। করোনার নতুন ধরনের সংক্রমণ ও তার গতিপ্রকৃতি বিবেচনা করে, বিশেষজ্ঞদের মতামত নিয়ে সরকার শিগগিরই একটি সিদ্ধান্ত নেবে।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সমৃদ্ধ আগামী নির্মাণের চলমান যাত্রায় সবাইকে নিজ নিজ অবস্থানে থেকে ভূমিকা রাখার জন্য আহ্বান জানান সেতুমন্ত্রী।

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশাপাশি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে গবেষণা কাজে অধিকতর গুরুত্ব দেওয়ারও আহ্বান জানিয়েছেন সড়ক পরিবহনমন্ত্রী।

বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. আবুল হাসান মো. সাদেকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকি, বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. জাফর সাদেক প্রমুখ।