যে কারণে ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ করেছিলেন এ আর রহমান

এ আর রহমান এমন একজন শিল্পী, যাঁর জীবনে দুঃখপূর্ণ অধ্যায় রয়েছে। ল’ড়াই-সংগ্রাম করে ধাপে ধাপে তিনি সাফল্যের শিখরে উঠেছেন। অস্কারজয়ী এ শিল্পী বিশ্বসংগীতে ভা’রতকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন। আজ ৬ জানুয়ারি এ সংগীতজ্ঞের জন্ম’দিন।

যা হোক, শুধু সংগীত নয়, এ আর রহমানের ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ আজও আলোচনার বিষয়। বিভিন্ন সময় তাঁকে এ নিয়ে প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হয়। অবশ্য এর উত্তরও দিয়েছেন বহুবার।

হিন্দুস্তান টাইমসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, এ আর রহমানের জন্মনাম দিলীপ কুমা’র। সুরকার বাবা আর কে শেখরের মৃ’ত্যুর কিছু দিন পর এবং তাঁর প্রথম প্রকল্প ‘রোজা’ মুক্তির আগে তিনি সপরিবারে ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ করেন। তাঁর মা-ও নাম পরিবর্তন করে হন করিমা বেগম।

হিন্দুস্তান টাইমস ব্রাঞ্চকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এ আর রহমান বলেছিলেন, ধ’র্ম ব্যক্তিগত ব্যাপার এবং জো’র করে কারও ওপর নিজের ধ’র্মবিশ্বা’স চাপিয়ে দেওয়ায় তিনি বিশ্বা’সী নন। রহমান বলেন, ‘আপনি কোনো কিছুই চাপিয়ে দিতে পারেন না।

আপনি আপনার ছে’লে বা মে’য়েকে বলতে পারেন না, ইতিহাসে পড়ো না, কারণ এটি বির’ক্তিকর; অর্থনীতির পরিবর্তে অথবা বিজ্ঞান… এটা ব্যক্তিগত পছন্দের ব্যাপার।’

ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণের পরই কি জীবনে সফলতা এসেছে, এমন প্রশ্ন অনেকেই করেন এ আর রহমানকে। এই সংগীতজ্ঞ বলেন, ‘এটা ইস’লামে ধ’র্মান্তরের বিষয় নয়। এটি আসলে সেই কেন্দ্রটি খুঁজে পাওয়া এবং নিজের ভেতর থেকে তাগিদ অনুভব করা।

এ ক্ষেত্রে আধ্যাত্মিক ও সুফি গুরুদের শিক্ষা এবং আমা’র মায়ের ভাবনাচিন্তাও বিশেষ ভূমিকা রেখেছে। প্রত্যেক বিশ্বা’সেই বিশেষ কিছু রয়েছে এবং আম’রা একটি বিশ্বা’স বেছে নিয়েছি মাত্র। এবং আম’রা এর পক্ষে।’

এ আর রহমান আরো বলেন, “প্রার্থনা খুব উপকারী। অসংখ্য পতন থেকে এটি আমাকে রক্ষা করেছে। প্রার্থনার মাঝে মনে হয়, ‘ওহ, আমাকে প্রার্থনা করতে হবে।

তাই আমি খা’রাপ কাজ করতে পারব না।’ অন্য ধ’র্মবিশ্বা’সীরাও একই কাজ করেন এবং তাঁরাও শান্তিকামী। আমি এভাবেই ভাবি!”

আজ এ আর রহমানের জন্ম’দিন। সারা বিশ্বে থাকা অসংখ্য ভক্ত-অনুরাগী এ সংগীতজ্ঞকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শুভেচ্ছায় ভাসাচ্ছেন।