প্রধান শিক্ষককে চেয়ার দিয়ে পে’টালেন ম‌্যানেজিং কমিটির সভাপতি

ভাইয়ের দখল করা কক্ষে বিদ্যুৎ সংযোগ না দেয়ায় পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শামসুদ্দিনকে (৫০) মা’রধরের অ’ভিযোগ উঠেছে বিদ্যালয়টির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হান্নান খানের বি’রুদ্ধে।

শুক্রবার (৮ জানুয়ারি) বিকেলে উপজে’লার গৈয়াতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের লাইব্রেরি কক্ষে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা ওই শিক্ষককে উ’দ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতা’লে ভর্তি করেছে।

আ’হত শিক্ষক শামসুদ্দিনের অ’ভিযোগ, ‘দীর্ঘদিন ধরে স্কুলের একটি কক্ষ দখল করে পরিবার নিয়ে থাকছেন হান্নান খানের ভাই হামিদ খান। এ বিষয়ে বেশ কয়েকবার অ’ভিযোগ করা হলেও সভাপতি কোনো পদক্ষেপ নেননি।’

তিনি বলেন, ‘আজ জুমা’র নামাজের পর বিদ্যালয়ে বসে উপবৃত্তির তালিকা তৈরির সময় হান্নান খান বিদ্যালয়ে আসেন। ভাইয়ের দখল করা কক্ষে কেন বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হয়নি, তা জানতে চান তিনি। কথাবার্তার একপর্যায়ে উত্তেজিত হয়ে সেখানে থাকা চেয়ার দিয়ে তিনি আমাকে পি’টিয়ে জ’খম করেন।’

মা’রধরে বাম হাতসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আ’ঘাত পেয়েছেন বলে জানান ওই প্রধান শিক্ষক।

বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আবদুল জলিল বলেন, ‘সভাপতির ভাইয়ের জন্য স্কুল থেকে বিদ্যুৎ সংযোগ না দেয়ায় প্রধান শিক্ষকের ওপর তিনি হা’মলা করেন।’

তবে মা’রধরের অ’ভিযোগ অস্বীকার করে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হান্নান খান জানান, ম’সজিদে জুমা’র নামাজের সময় স্কুলের মাঠে বালু রাখা নিয়ে প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে মু’সল্লিদের কথা কা’টাকাটি হয়। পরে এ বিষয়ে জানতে গেলে প্রধান শিক্ষক উত্তেজিত হয়ে চেয়ার দিকে তাকে মা’রধরের চেষ্টা করেন। এ সময় তিনি এবং প্রধান শিক্ষক উভ’য়েই আ’হত হন।

এ ব্যাপারে কলাপাড়া থা’নার ভা” রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি) খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনো অ’ভিযোগ পাইনি। অ’ভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’