শি’শুর চোখ খেলো পিঁপড়ায়, কা’ন্না করতে করতে অ’জ্ঞান হয়ে যাচ্ছেন মা

ময়মনসিংহের তারাকান্দায় অ’পহ’র’ণের তিনদিন পর জ’ঙ্গলে সানজিদা আক্তার নামে এক শি’শুর লা’শ মিলেছে। শুক্রবার সকালে উপজে’লার রামচন্দ্রপুর আকন্দবাড়ির জ’ঙ্গল থেকে শি’শুটির লা’শ উ’দ্ধা’র করে পু’লিশ।

নি’হ’ত সানজিদা উপজে’লার রামচন্দ্রপুর এলাকার শাহ’জাহান আকন্দের মে’য়ে। সে স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ে দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়াশোনা করত। নি’হ’তের বাবা শাজাহান আকন্দ বলেন, মঙ্গলবার দুপুরে বাড়ির উঠান থেকে সানজিদা অ’পহৃ’ত হয়।

একটি চিরকুটে লিখে যাওয়া নম্বরে অ’পহ’র’ণকা’রীদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলা হয়। কিন্তু নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়। এর পরদিন বিকাশ নম্বরে ২০ হাজার টাকা পাঠাতে বলে অ’পহর’ণকা’রী’রা। এ ঘটনায় বুধবার থা’নায় জি’ডি করা হয়। কিন্তু মে’য়েকে উ’দ্ধা’র করতে পারেনি পু’লিশ। টাকা না পাঠানোয় ‘লা’শ হলো আমা’র মে’য়ে।

এ বিষয়ে জে’লা ডিবি পু’লিশের ওসি শাহ কামাল বলেন, নম্বর ট্র্যাকিং করে অ’পহ’র’ণকা’রীদের শনা’ক্ত করার চেষ্টা করছিলো পু’লিশ। কিন্তু শুক্রবার সানজিদার ‘লা’শ মেলে জ’ঙ্গলে। এ ঘটনায় দ্রুতই অ’পরা’ধীদে’র আ’ই’নের আও’তায় আনা হবে।

এদিকে স্থানীয় সার্কেল এএসপি দীপক চন্দ মজুম’দার বলেন, নি’হ’তে’র হাত ও পায়ে শি’য়া’লের কা’ম’ড়ের চিহ্ন রয়েছে। চোখ দুটি সম্ভবত পিঁপড়ায় খেয়ে ফেলতে পারে।

এ ঘটনায় এখনো কাউকে আ’ট’ক করা সম্ভব হয়নি। নি’হ’তে’র বাড়িতে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নি’হ’ত সানজিদার ম’রদে’হ দেখতে শাহ’জাহান আক’ন্দে’র বাড়িতে ভি’ড় করছেন হাজার হাজার মানুষ।

সানজিদার মা কা’ন্না করতে করতে বার অ’জ্ঞা’ন হয়ে পড়ছেন। আর বাবা মে’য়ে হা’রানো’র শো’কে কাতর। এলাকাবাসী বলছেন, এমন ঘটনা রামচন্দ্রপুর গ্রামে আগে ঘটেনি।