হাঁপানি প্রতিরোধে মৌরি

মৌরি এক ধরনের মশলা। এটা শুধু মশলা হিসেবেই নয়, এই মৌরির রয়েছে আরো বহু ব্যবহার। তাছাড়া মৌরিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি। পাশাপাশি এতে ক্যালসিয়াম, সোডিয়াম, ফসফরাস, আয়রন এবং পটাসিয়ামও রয়েছে। মৌরিতে থাকা পুষ্টিকর উপাদানগুলো আপনার শরীরের বিভিন্ন রোগব্যাধি সারাতে পারে।
দৃষ্টিশক্তি উন্নত করতে, হরমোনের ভারসাম্য বজায় রাখতে এমনকি কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যাও সারাতে পারে মৌরি। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক, মৌরি শরীরের জন্য কতটা উপকারী সে সম্পর্কে-

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে
মৌরির চা হজম প্রক্রিয়ার জন্য দারুণ ওষুধ। পেটের সমস্যা ও কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধে মৌরির তেলের বিশেষ উপকারী গুণ আছে। গ্যাস্ট্রিক এনজাইম তৈরিতে এই মৌরি কার্যকর ভূমিকা রাখে।

নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ দূর করতে
নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ হয়েছে? নিয়মিত সামান্য পরিমাণে মৌরি খান। এতে আপনার শ্বাস পরিষ্কার হবে।

হজমে গণ্ডগোল দূর করতে
পেট পরিষ্কার রাখার ওষুধ তৈরিতে একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হলো মৌরি। আর এটি পেটের গ্যাস যেমন দূর করে তেমন হজমের গণ্ডগোলও দূর করতে সহায়তা করে। মৌরি চিবোলে মুখ থেকে যে লালা ক্ষরিত হয় তা হজমে সাহায্য করে। পাশাপাশি ‌মৌরিতে যে ফাইবার থাকে তা যেমন খাদ্যকে পাচনতন্ত্র বেয়ে এগিয়ে যেতে সাহায্য করে তেমনই তা কোষ্ঠবদ্ধতার ওষুধ হিসেবেও কার্যকর।

হাঁপানি প্রতিরোধ করতে পারে মৌরি
মৌরিতে যে ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট আছে, তা সাইনাসের সমস্যা দূর করতে পারে। ব্রঙ্কাইটিস ও কফের সমস্যা দূর হয় মৌরির চা খেলে। হাঁপানির সমস্যা সমাধানেও মৌরি থেকে উপকার পাওয়া যাবে।

ওজন হ্রাস করতে
মৌরি দেহের বাড়তি ওজন হ্রাস করতে ভূমিকা রাখে। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় পাওয়া গেছে, এর ওজন হ্রাসের প্রমাণ। এটি উষ্ণ পানিতে মিশিয়ে সেবন করলে দেহের ওজন কমবে।

ব্রণ নিয়ন্ত্রণে
মৌরিতে রয়েছে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট গুণ। আর এ কারণে এটি দেহের সংক্রমণের বিরুদ্ধে যেমন কাজ করে তেমন দেহের ব্রণ সমস্যাও কমায়।

পেটের চর্বি নিয়ন্ত্রণ করতে
অনেকেরই পেটে বাড়তি চর্বি জমে যায়। এ সমস্যা দূর করতে পারে নিয়মিত মৌরি সেবন। এ জন্য প্রতিদিন সামান্য মৌরি, জিরা ও মেথির গুঁড়া একত্রিত করে উষ্ণ পানিতে মিশিয়ে পান করা যেতে পারে।

খাবারের স্বাদ বাড়াতে
আপনার যেকোনো রান্না করা খাবারের স্বাদ বাড়াতে পারে মৌরি। এ জন্য আপনি মৌরি এয়ারটাইট পাত্রে সংরক্ষণ করতে পারেন। রান্নার সময় এটি যে খাবারেই দেবেন, তারই স্বাদ বেড়ে যাবে।

চোখের জ্যোতি বাড়ে
মৌরিতে আছে ভিটামিন এ, যা চোখের জন্য দরকারি। চোখের সমস্যা গ্লুকোমা দূর করতে মৌরির চা কার্যকর।

যেভাবে খাবেন
প্রথমে এক চামচ কাঁচা মৌরি ভালো করে ধুয়ে এক গ্লাস পানিতে সারারাত ভিজিয়ে রাখু`ন। পরের দিন সকালে উঠে পানি ছেঁকে নিয়ে খালি পেটে পান করুন।