পা ফেটে চৌচির হওয়ার আগেই ট্রাই করুন অব্যর্থ ঘরোয়া টোটকা

শীতের মরশুম আসতে চলেছে! পা ফেটে চৌচির হওয়ার অপেক্ষায় থাকবেন? নাকি এখন থেকেই কেয়ার নেবেন আপনার দু পায়ের! সামান্য পা ফাটার সমস্যা কতখানি মারাত্মক হতে পারে তা অনেকেরই জানা। সঠিক যত্ন না নিলে পা ফেটে রক্ত পর্যন্ত পড়তে পারে।

বাজারে পা ফাটার মলম হিসাবে বেশকিছু ক্রিম পাওয়া যায়, তা অবশ্য অনেকেই ব্যবহার করেন। কিন্তু পা ফাটাকে পাকাপাকি ভাবে দূর করতে আপনাকে হাত ধরতেই হবে কিছু অব্যর্থ ঘরোয়া টোটকার। যা একদিকে যেমন আপনার পায়ের আর্দ্রতা বজায় রেখেই পা ফাটার সমস্যা দূর করবে, তেমনই অন্যদিকে ঘন ঘন পা ফাটার সমস্যাকেও বলবে বাই বাই।

পা ফাটার সমস্যা দূর করার জন্য কিছু অব্যর্থ ঘরোয়া টোটকা টোটকা শব্দটা শুনে ভাববেন না যে আজকের টিপস একবার করলেই সব পা ফাটা সাটা গায়েব হয়ে যাবে! নিয়ম মেনে স্টেপ বাই স্টেপ কয়েকদিন করলে তবেই ভালো রেজাল্ট পাওয়া সম্ভব।

১) বেকিং সোডা পা ফাটার সমস্যা দূর করতে বেকিং সোডা খুবই ভালো কাজ করে। এর জন্য আপনাকে যা করতে হবে-প্রথমে একটি পরিষ্কার পাত্রে ২ লিটার ঈষদ-উষ্ণ জল ঢেলে নিন। এবার তাতে ৪ চামচ বেকিং সোডা মিশিয়ে নিন। কুড়ি মিনিট থেকে আধ ঘণ্টা মতো ওই জলে পা ডুবিয়ে বসে থাকুন। এরপর জল থেকে পা তুলে পিউমিক স্টোনের সাহায্যে গোড়ালি ঘষে নিন।

পা ভালো করে ধুয়ে কোনও ভাল ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন। এই পদ্ধতি ২ সপ্তাহ অবলম্বন করলেই ফল পাবেন।
২) গ্লিসারিন, লেবুর রস ও গোলাপ জলের মিশ্রণ গ্লিসারিন ফাটা পা মসৃণ করতে খুবই কার্যকর। সেইসঙ্গে গোলাপ জল ত্বককে নরম ও কোমল রাখতে সাহায্য করে। এর জন্য যা করবেন- প্রথমে আপনার পা দু’টি ঈষদ-উষ্ণ জলে ডুবিয়ে রাখু`ন। এরপর এক চামচ গ্লিসারিন, এক চামচ লেবুর রস এবং এক চামচ গোলাপ জল ভালো করে একটি পাত্রে মিশিয়ে নিন।

এবার এই মিশ্রণটি পায়ে ভালো করে মেখে নিন, ভালো ফল পেতে সারা রাত মিশ্রণটি পায়ে লাগিয়ে রাখু`ন। পারলে মোজা পরে নিন। পরের দিন সকালে উঠে উষ্ণ জলে পা ধুয়ে নিন। পদ্ধতিটি এইভাবে সপ্তাহে ২-৩ দিন ব্যবহার করুন।
তিন সপ্তাহ এইভাবে করার পর ফল পাবেন হাতেনাতে। ৩) মধু শীতে আকর্ষণীয় ত্বক হোক বা সুন্দর গোড়ালি, মধু হোক আপনার সর্বক্ষণের সঙ্গী। এরজন্য পদ্ধতিটি খুবই সহজ-

একটি বড় গামলায় ২ লিটার ঈষদ-উষ্ণ জল নিন। এবার তাতে ৫-৬ বড় চামচ মধু মেশান। ভালো করে মিশিয়ে নিয়ে তাতে পা ডুবিয়ে রাখু`ন। এরপর জল থেকে পা তুলে নিয়ে গোড়ালি পিউমিক স্টোন দিয়ে পরিষ্কার করুন। এই পদ্ধতিটি দুই থেকে তিন সপ্তাহ ব্যবহার করলে গোড়ালি ফাটার সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন সহজেই।

৪) পাকা কলা এবং নারকেল তেল পা ফাটা রোধে পাকা কলা খুবই কার্যকরী ভুমিকা পালন করে। এর জন্য কি কি করবেন- প্রথমে একটি পাকা কলা ভাল করে চটকে নিন। এরপর তাতে দুই থেকে তিন চা-চামচ মতো নারকেল তেল মিশিয়ে নিন।

এরপর মিশ্রণটি ফাটা অংশে খুব ভালো করে লাগান। মিশ্রণটি পায়ে শুকিয়ে গেলে উষ্ণ জলে পা ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ২-৩ দিন অ্যাপ্লাই করলে ফলাফল পাবেন খুব তাড়াতাড়ি।

৫) ভেসলিন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপকরণ হল ভেসলিন। তবে ভালো ফল পেতে এর সঙ্গে মিশিয়ে নিন খানিকটা লেবুর রস। প্রত্যেকদিন রাতে শোওয়ার আগে ভেসলিনের সঙ্গে সামান্য লেবুর রস মিশিয়ে পায়ে মেখে নিন। পরের দিন সকালে স্নান করার আগে পিউমিক স্টোন দিয়ে পা ঘষে নিন।

এই পদ্ধতি প্রতিদিন অ্যাপ্লাই করলে শীঘ্রই পা ফাটা থেকে মুক্তি পাবেন। শীতকালে যাদের খুব বেশি পা ফাটার সমস্যা তারা এটি এখন থেকেই ট্রাই করুন। এই পাঁচটি উপায়ের মধ্যে যেকোনো একটি নিজের সুবিধা মত ব্যবহার করলেই হবে।