সেঞ্চুরি করবে কল্পনাও করতে পারেননি মিরাজ। হঠাৎ যার একটি ‘ফোনকল’ বদলে দিল মিরাজের ভাবনা

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের তরুণ অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম ম্যাচের দ্বিতীয় দিন আট নম্বরে ব্যাট করতে নেমে সেঞ্চুরি পূরণ করেন তিনি।

এত পরে নেমেও সেঞ্চুরি করতে পারবেন, সেই বিশ্বাস ছিল না খোদ মিরাজেরই। তবে মিরাজের ছোটবেলার কোচ আল মাহমুদ ম্যাচ শুরুর আগেই আবদার করেছিলেন সেঞ্চুরির। সেটি করতে পেরে সন্তুষ্টি ২৩ বছর বয়সী মিরাজের কণ্ঠে।

আজ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে নেমে ১০৩ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ম্যাচ শেষে নিজের আনন্দেরকথা জানাতে গিয়ে মেহেদী হাসান মিরাজ বলেন, “ব্যাটিংয়ে নামার সময় এমন কিছু মাথায় ছিল না। তবে সবসময় চিন্তা করছিলাম।

“খেলা শুরুর আগে, আমার প্রথম যে কোচ আল মাহমুদ, খুলনা থেকে আমাকে ফোন করেছিলেন যে, এই ম্যাচে একটা সেঞ্চুরি দেখতে চাই। কিন্তু আমার নিজের বিশ্বাস হচ্ছিল না যে এটা কী করে সম্ভব। আট নম্বরে নেমে সেঞ্চুরি করা কীভাবে সম্ভব!’

তিনি আরও বলেন, ‘সে (আল মাহমুদ) আমাকে সবসময় উৎসাহ দিচ্ছিল, বলছিল-তুই যদি ভালোভাবে খেলতে পারিস, ভালো সুযোগ আছে, সেঞ্চুরি হতে পারে। সাহস দিচ্ছিল। তবে এটা বলতে চাই যে, আমার নিজের ভেতরে বিশ্বাস হচ্ছিল না”।

“তবে এখন তো আল্লাহ্র অশেষ রহমতে নিজেকেও বিশ্বাস করছি যে, শেষের দিকে যদি ব্যাটসম্যান ভালো খেলে বা বোলার সাপোর্ট করে; তাহলে ভালো রান করা, সেঞ্চুরি করা সম্ভব।’

বয়সভিত্তিক ক্যারিয়ারে ২০১৩ সালে নিজের প্রথম ম্যাচেই সেঞ্চুরি করেছিলেন মিরাজ। এরপর মাঝের ৮ বছর আর কোনো স্বীকৃত ক্রিকেটে তিন অঙ্কের দেখা পাননি তিনি। আজ আবার পেলেন সেঞ্চুরি। নিজের অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে সৃষ্টিকর্তার প্রতি শুকরিয়া আদায় করেন মিরাজ।

টাইগার অলরাউন্ডারের ভাষ্য, ‘আলহামদুলিল্লাহ্। আল্লাহ্র কাছে লাখ লাখ শুকরিয়া। খুব ভালো লাগছে যে, আসলে এরকম একটা সেঞ্চুরি… খুব ভালো লাগছে এবং আসলে অবিশ্বাস্য। আমার নিজের কাছে অনেক ভালো লাগছে।’