স্বামী বিদেশ থাকার সুযোগে নেহা ছিল বেপরোয়া, বেরিয়ে আসছে গা শিউরে ওঠার মতো তথ্য

নাম তার ফারজানা জামান নেহা ওরফে ডিজে নেহা। এই সুন্দরী রমণী কুইন নেহা নামেও তার চ’ক্রে পরিচিত। রাতে তার পরনে থাকে প্রায় অর্ধ উ’ল’ঙ্গ ওয়েস্টার্ন ড্রেস। চালচলনে বি’কৃত রকমের আভিজাত্যের ছাপ। দিনে ঘুম, রাতে ডিজে ও ম’দের পার্টিতে অ;শ্লী’ল রকমের নাচ।

লাল-নীল আলো আঁধারে ঠোঁটে শি’শার পাইপ দিয়ে স্লো মোশনে ধোঁ’য়া ছাড়া যার নে’’শা। কখনওবা হাতে দামি বিদেশি ম’দে’র বোতল নিয়ে চু’মো দেয়া তার ফ্যাশন।

নামি-দামি ব্রান্ডের গাড়ি নিয়ে ঘুরে বেড়ানো এই রমণী বাগে আনা ধনী পরিবারের ত’রুণ-ত’রুণীদের দিয়ে করান রম’রমা দে’হ ব্য’বসা। এক কথায় ওয়েস্টার্ণ ধাঁচে চলাফেরা করা রূপের ঝলক দেখানো ডিজে নেহা নানান অ;শ্লী’লতার মধ্যেই ডুবে ছিলো।নেহাকে জি’জ্ঞাসাবা’দে একে একে গা শি’উরে ওঠার মতো ত’থ্য বেরিয়ে আসছে।

জানা যাচ্ছে, তার অ’ন্ধকার জগতের যতো অ’পকর্মের গো’পন খ’বর। ত’থ্য পাওয়া যাচ্ছে, কেবল ডিজে নেহা নয় নেহার মতো এমন অনেক ত’রুণ-ত’রুণীই রয়েছে যাদের কর্মকা’ণ্ড একই রকমের, কেবল নামেই ভিন্ন।

নেহার টা’র্গেট ধনী পরিবারের তরুণ-তরুণী: নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে অ;শ্লী’ল জ’গতে পা বাড়ানো নেহার টা’র্গেট ছিলো ধনী পরিবারের ত’রুণ-ত’রুণীরা। বিশেষ করে নামি দামি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের দিকেই ছিলো তার বিশেষ আকর্ষণ।

টা’র্গেট’কৃতদের সঙ্গে সখ্যতা তৈরিতে তার হয়ে একাধিক উশৃঙ্খল ত’রুণ-ত’রুণী মাঠ পর্যায়ে কাজ করতো। যাদেরকেও বিভিন্ন রকমের সুযোগ সুবিধা দিতো ডিজে নেহা। শিশা পার্টি, ম’’দ পার্টি এবং অ’শ্লী’ল নাচের আয়োজনে দাওয়াত পেত সমাজের উচ্চ বিত্তের স’ন্তানরা। যারা নেহার হাত ধরেই বে’লাল্লাপ’না’য় জ’ড়িয়ে পড়ে।

স্বামী তার লন্ডনে: প্রাথমিকভাবে জানা যায়, কয়েক বছর আগে লন্ডন প্রবাসী এক ব্যক্তির সঙ্গে নেহার বিয়ে হয়। ওই প্রবাসী লন্ডনে গিয়ে নেহাকেও তার কাছে নিয়ে যাওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু, নানান অ’জুহাতে নেহা সেখানে যেতে পারছিলেন না।

লন্ডনে যাওয়ার জন্য বেশ কয়েকবার চে’ষ্টাও নাকি করেছিলেন। তবে, নেহার বিয়ের বিষয়ে পু’লিশ স’ন্দি’হান। শিশা লাউঞ্জ ও ম’দ পার্টি থেকে র’ম’রমা দে’হ ব্যব’সা: কথিত ম’হারাণী নেহার কপাল খুলতো শি’শা লা’উঞ্জ ও ম’’দের পার্টিতে। যে পার্টিতে যোগ দিতে আসা ধনী ত’রুণ-ত’রুণীরা একে অ’পরের সাথে পরিচিত হতো।

সেই সূত্র ধ’রে আ’কর্ষিত হয়ে যদি কেউ কাউকে একা’ন্তে পাওয়ার ইচ্ছে প্র’কাশ করতো তাকে ডিজে নেহার স’ঙ্গেই যোগাযোগ করতে হতো। এই নেহাই টা’র্গেট’কৃত ‘তরুণ বা ত’রুণীকে ম্যানেজ করার কথা বলে চাহিদা প্র’কাশকারীর কাছ থেকে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিতো।

তার এই অ’বৈধ অর্থকড়ির খোঁ’জে নেমেছে গো’য়েন্দারা। নেহার অ’প’রাধ নে’টওয়ার্কিং: ওয়েস্টার্ন স্টাইলে চলাফেরা করা নেহা খুবই চতুর প্রকৃতির রমণী। সে ধনী পরিবারের ত’রুণ-ত’রুণীদের সঙ্গে সখ্যতা গড়ে তুলতে বিভিন্ন কলাকৌশল প্র’য়োগ করতো।

এই নেহার একাধিক টি’ম অ’ভিজাত শ্রেণির ছে’লে মে’য়েদের টা’র্গে’ট করে তাদেরকে ডিজে পার্টি, শিশা লাউঞ্জ এবং ম’দের পার্টিতে নিয়ে আসতো। এ পার্টিগুলো সাধারণত অ’বৈধ বার বা লা’উঞ্জে অনুষ্ঠিত হতো।

এসব পার্টি বাবদ অ’বৈধ বার বা লাউঞ্জ ব্যবসায়ীরা বড় অংকের টাকা পেতো। নেহার মাঠ পর্যায়ের টিমে নামি দামি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের কতিপয় উ;শৃঙ্খল শিক্ষার্থী রয়েছে বলে জানা গেছে।