তামিমার একাধিক স্বামী: নাসিরকে যা বললেন অভিনেত্রী সুবাহা

জাতীয় দলের আলোচিত ক্রিকেটার নাসির হোসেন রোববার (১৪ ফেব্রুয়ারি) বিয়ে করেছেন। রাজধানীর উত্তরার একটি রেস্টুরেন্টে বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়। নাসিরের স্ত্রীর নাম তামিমা তাম্মি। তিনি পেশায় একজন কেবিন ক্রু। কাজ করেন বিদেশি একটি এয়ারলাইন্সে।

দুজনের চেনাজানা অনেক আগে থেকেই। গেল বছর সেপ্টেম্বরে ইনস্টাগ্রামে একটি মেয়েকে নিয়ে পোস্ট দিয়েছিলেন নাসির। যদিও মিনিট দশেক পর পোস্টটা ডিলিটও করে দিয়েছিলেন। শেষ পর্যন্ত তার সঙ্গে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন।

কিন্তু বিয়ের সপ্তাহ পার না হতেই শুরু হয়েছে নতুন বিতর্ক। শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) জানা যায়, নাসিরের স্ত্রী তামিমার আগে একটি বিয়ে ছিল। সেখানে ১১ বছর সংসার করেছেন তিনি। ওই ঘরে ৮ বছর বয়সের একটি কন্যা সন্তানও রয়েছে।

এ বিষয়ে আইনগত পদক্ষেপ নিচ্ছেন তামিমার সাবেক স্বামী রাকিব হাসান। তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে উত্তরা পশ্চিম থানায় একটি জিডি করেছেন। উত্তরা পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাও (ওসি) শাহ মো. আক্তারুজ্জামান ইলিয়াস বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

কিন্তু জিডির কপি প্রকাশ হওয়ার পর বেরিয়ে এসেছে তামিমার আরেক বিয়ের তথ্য। রাকিবের সঙ্গে সংসার করা অবস্থায় তামিমা আরেকটি বিয়ে করেছিলেন। সেখানে ছয় মাস সংসারও করেছিলেন।

রাকিবের করা জিডিতে এমন তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে। জিডিতে বলা হয়েছে, ২০১১ সালে তামিমা তাম্মিকে বিয়ে করেন রাকিব। দাম্পত্য জীবনে তাদের একটি মেয়ে রয়েছে। এর মধ্যেই তামিমা অন্য এক ছেলের সঙ্গে সম্পর্কে জড়ায়। ছয় মাস সংসার করার পর ফিরে আসে। পরে রাকিবের সঙ্গে ক্ষমা চেয়ে পার পায়। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি নতুন করে নাসিরের সঙ্গে ছবি ভাইরাল হলে রাকিব জানতে পারেন, তামিমা বিয়ে করেছেন।

জিডি করার কারণ উল্লেখ করে রাকিব বলেন, সংসারজীবনে বিবাদীর কাছে অনেক টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার রাখা আছে। এমনকি আমাকে তালাকও দেননি। টাকা ও অলঙ্কার চাইলে বিবাদী আমাকে ক্ষতি করবে বলে হুমকি দিয়েছেন। আপাতত কোনো মামলা করবেন না বলে উল্লেখ করেছেন তিনি।

বিষয়টি নিয়ে আবারো মুখ খুলেছেন নাসিরের সাবেক প্রেমিকা আলোচিত অভিনেত্রী হুমায়রা সুবাহ। তামিমার আগের বিয়ের খবরের একটি লিঙ্ক সামাজিকমাধ্যমে শেয়ার করে হুমায়রা লিখেছেন, ‘কিছুই বলার নেই’ বাই দ্যা ওয়ে ‘অভিনন্দন’। তবে ফিলিং মুডে সুবাহ দিয়েছেন ‘ব্যাড’।

এর আগে ১৪ ফেব্রুয়ারি নাসির বিয়ে করার পর ক্ষুব্ধ হয়ে সুবাহ তার নিজের ফেসবুকে একটি ভিডিও পোস্ট করেছিলেন।

৭ মিনিট ৪৭ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে বার্তায় তিনি বলেছিলেন, তার (নাসির) সঙ্গে আমার সবকিছু শেষ হয়ে গেছে ২০১৮ সালে। এখন ২০২১ সাল। ৭ দিনে মানুষ মইরা ভুত হয়ে যায়, আর আপনারা ৩ বছর এক জিনিস মনে রাখছেন! এর মধ্যে আমি মিডিয়ায় আসলাম, সিনেমা করলাম, গান গাইলাম- এসব তো কেউ দেখেন না। এসব নিয়ে কথা বলেন না।

এমনও তো হতে পারে আমি নতুন বয়ফ্রেন্ডকে নিয়ে ভালো আছি ভাই…। কী জন্য আপনারা শুধু নাসির নাসির করেন? নাসির বিয়ে করতেছে ভালো কথা। আমি জানি ও বিয়ে করবে, তো? করতেই পারে। দুদিন পর আমিও করব।

তিনি আরো বলেন, তো ও কি বিয়ে করবে না? সারাজীবন সিঙ্গেল থাকবে, নাকি আমার জন্য বইসা থাকবে? না আমি ওর জন্য বসে থাকব? মজার বিষয় হচ্ছে, নাসির যে মেয়েটাকে বিয়ে করছে, তাকে সবাই আমরা চিনি। ওর একটা ভাই ছিল, সেও আমার ফেসবুক ফ্রেন্ড ছিল। …. এতকিছু বলার দরকার কী?

আমি এখন একজন অভিনেত্রী এবং মডেল। বাংলাদেশের মিডিয়াতে আমি আছি; আমাকে সবাই চেনে। নিজের চরকায় তেল দেন। দেখেন আপনার বউ কার সঙ্গে ভাইগা গেছে; কার বয়ফ্রেন্ড কার গার্লফ্রেন্ডের লগে ভাইগা গেছে… এইসব নিয়ে চিন্তা করেন। আমার ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে আপনাদের চিন্তা করতে হবে না।’

সুবাহ বলেন, ও (নাসির) বিয়ে করছে ও মজায় আছে। আমার বয়ফ্রেন্ড আছে আমিও মজায় আছি। আপনাদের (সাধারণ মানুষ) তিন-চারটা বউ থাকতে পারে, গার্লফ্রেন্ড থাকতে পারে আর আমরা মডেলদের দুই-চারটা বয়ফ্রেন্ড থাকলে দোষ কি? নিজের চরকায় তেল দেন। নাসিরের সঙ্গে আমার সম্পর্ক ছিল, সেইটা ২০১৮ সালেই লাইভের মাধ্যমে শেষ করে দিছি। আমিও বিয়ে করব। সবাইকে দাওয়াত দিতে পারব না, কিন্তু ছবি পোস্ট করব। তখন কি আমার বিয়ের ছবি আপনারা নাসিরের ওয়ালে পোস্ট করবেন? এত খোঁচান কেন?