এদেশে অন্যায়ের বি’রুদ্ধে অবস্থান নেয়াটাই অন্যায়: সারোয়ার আলম

রেবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট থাকাকালীন একের পর এক অ’ভিযান পরিচালনা করে আলোচনায় ছিলেন সারোয়ার আলম। দেশে করো’না সংক্রমণের পর থেকে সারোয়ার আলম কোয়ারেন্টাইন ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত, নকল মাস্ক, গ্লাভসের বি’রুদ্ধে অ’ভিযান পরিচালনা করেন।

এছাড়া গত বছরের রমজান মাসে বেশ কয়েকটি ভেজালবিরোধী অ’ভিযানও পরিচালনা করেন তিনি। ভ্রাম্যমাণ আ’দালত পরিচালনার কারণে নিয়মিত আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলেন সারোয়ার।

এসব আলোচনার মধ্যেই গত বছরের নভেম্বরের দিকে তাকে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব হিসেবে বদলি করা হয়েছে।

চাকরি জীবনের তিক্ত অবিজ্ঞতা উল্লেখ করে সোমবার রাতে নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন সারোয়ার আলম। তিনি লিখেছেন,

‘‘চাকরি জীবনে যেসব কর্মক’র্তা-কর্মচারী অন‍্যায়, অনিয়মের বি’রুদ্ধে ল’ড়েছেন তাদের বেশীরভাগই চাকরি জীবনে পদে পদে বঞ্চিত ও নিগৃহীত হয়েছেন। এদেশে অন‍্যায়ের বি’রুদ্ধে অবস্থান নেয়াটাই অন‍্যায়!’’

সারোয়ার আলম প্রথম আলোচনায় আসেন ২০১৪ সালে। ফার্মগেটে ওভা’র ব্রিজ বাদ দিয়ে যারা সড়কে রাস্তা পারাপার হচ্ছিলেন তাদের নামমাত্র জ’রিমানা করে সচেতন করেছিলেন তিনি। তার আ’লোচিত অ’ভিযানের মধ্যে অন্যতম ছিল ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে ফকিরাপুলে ক্যাসিনোতে অ’ভিযান।

গত বছরের ১৮ সেপ্টেম্বর ফকিরাপুলের ইয়ংমেনস ক্লাব, ওয়ান্ডারার্স ক্লাব, মুক্তিযোদ্ধা সংসদে অ’ভিযান চালান তিনি। এ সময় ১৪২ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেন। উ’দ্ধার করা হয় ক্যাসিনো থেকে উপার্জিত অ’বৈধ ২৪ লাখ ২৯ হাজার টাকা।

এরপর গত বছরের ২১ সেপ্টেম্বর নিকেতনে যুবলীগ নেতা জি কে শামীমের অফিসে অ’ভিযানে যায় র‌্যা’­ব। সেখানেও ছিলেন সারোয়ার আলম। অ’ভিযানে তার কার্যালয়ে তল্লা’শি করে অ’বৈধভাবে উপার্জিত নগদ এক কোটি ৮০ লাখ, ২০০ কোটি টাকার এফডিআর, বিদেশি ডলার, ম’দ ও অ’স্ত্র উ’দ্ধার করেন তিনি।