রাতে ভোট হওয়ার সুযোগ নেই: সিইসি

বুধবার বিকেলে ঈশ্বরদীতে বাংলাদেশ সুগারক্রপ রিসার্চ ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে প্রিসাইডিং কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় বক্তব্য দেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা -সমকাল

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা বলেছেন, দেশে কখনও রাতের বেলা কোনো ভোট হয়নি। পাবনা-৪ আসনের উপনির্বাচনে ভোটের দিন সকালে কেন্দ্রে ব্যালট পেপার পাঠানো হবে; রাতে ভোট হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। এই উপনির্বাচন অবাধ, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ করতে গণপ্রতিনিধিত্ব অধ্যাদেশ অনুযায়ী সব ব্যবস্থা নেবে নির্বাচন কমিশন।

বুধবার সকালে পাবনা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে নির্বাচনী আইনশৃঙ্খলা সভায় যোগ দেওয়ার আগে এসব কথা বলেন সিইসি। তিনি বলেন, গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা রক্ষার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতায় করোনাকালে নির্বাচন করছে কমিশন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর এ উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। প্রার্থীদের নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে আহ্বান জানান তিনি।

পরে অনুষ্ঠিত সভায় সিইসি ছাড়াও নির্বাচন কমিশনের সিনিয়র সচিব আলমগীর কবীর, পাবনা জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ, পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলাম, আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ফরিদুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে বুধবার বিকেলে ঈশ্বরদীতে বাংলাদেশ সুগারক্রপ রিসার্চ ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে প্রিসাইডিং কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় যোগ দেন সিইসি নূরুল হুদা। রাতে ভোট হওয়ার সুযোগ নেই মন্তব্য করে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, করোনা ক্রান্তিকালে গণতন্ত্রকে স্বাভাবিক গতিতে এগিয়ে নেওয়ার লক্ষ্যে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। উপনির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠানের জন্য প্রিসাইডিং কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

সকালে ব্যালট পেপার কেন্দ্রে পৌঁছানোর নতুন নিয়ম প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, অতীতের নানা রকম অভিযোগ থেকে পরিত্রাণের জন্যই এ ব্যবস্থা। প্রত্যেক প্রার্থীর জন্য সমান অধিকার নিশ্চিত করার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

মতবিনিময় সভায় নির্বাচন কমিশনের সিনিয়র সচিব আলমগীর কবীর, সিনিয়র সচিব ফরহাদ আহম্মেদ খানসহ জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। সভাপতিত্ব করেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আব্দুল লতিফ শেখ।