ঘাস খাওয়া অ’বস্থায় ‘জ্যা’ন্ত গরুর কলিজা, ‘ভুঁ’ড়ি কাঁচা খেয়ে ফে’ললো কিশোর

মা’নুষ জীবন বাঁ’চাতে সাধারণত ভাত, ফল মু’লসহ নানা প্রকার খাদ্য সা’মগ্রী খেয়ে থাকে। কিন্তু ‘প’শু’র র’ক্ত, অ’ণ্ডকো’ষ, ক’লিজা, ‘ভুঁ’ড়ি খা’ওয়ার নজির খু’বই ‘দু’ষ্ক’র।

তবে এক ব্য’তিক্রমী ঘ’টনা ঘ’টেছে সো’মবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আ’খাউড়া পৌর শহরের তারাগন এলাকায়। তা’রেক (১৮) নামে এক কি’শোর মাঠে ঘাস খেতে যাওয়া এক গ’রুর র’ক্ত, অ’ণ্ডকো’ষ, ‘ভুঁ’ড়ি, ক’লিজা খেয়ে ফে’লেছে।

পা ‘বেঁ’ধে ‘ধা’রা’লো অ”স্ত্র দিয়ে ওইসব ঘ’টনা ‘ঘ’টায় সে। এটা নিয়ে এলাকায় ব্যা’পক চা’ঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। বি’ষয়টি স্বচক্ষে দেখার জন্য শত শত লোক ভিড় করে ঘ’টনাস্থলে। অ’ভিযুক্ত কি’শোর’কে আ’টক করেছে স্থা’নীয় লোকজন।

আ’টক ওই কিশোর একই এলাকার মো. আ’মাল খাঁর ছেলে। গরুর মা’লিক তারাগন পশ্চিম পাড়ার মো. আবু তাহের মিয়া বলেন, গত কিছুদিন আগে প্রায় ৫০ হা’জার টাকায় এই গ’রুটি ক্রয় করা হয়। প্র’তিদিনের মতো বাড়ি সংল’গ্ন মাঠে ঘাস খে’তে দেন।

দুপুরে মাঠে গিয়ে র’ক্তাক্ত অব’স্থায় গ’রুটি মাটিতে প’ড়ে থাকতে দে’খেন। সেইসাথে গরুর না’ড়িভুঁড়িও প’ড়ে আছে। তা’হের মিয়া আরও জা’নান, তাকে দে’খতে পেয়ে অ’ভিযুক্ত ওই কিশোর দ্রুত পালিয়ে যা’ওয়ার চেষ্টা করে।

স্থা’নীয় লো’কজন ধাওয়া করে তাকে আ’টক করে। সে গরুর ওইসব খে’য়েছে বলে স্বী’কার করে। অতি’রিক্ত র’ক্তক্ষরণ হও’য়ায় পরে গ’রুটিকে ‘জ’বা’ই করা হয়। তাহের মিয়া বলেন, অ’নেক কষ্ট করে এই গ’রুটি ক্রয় ক’রেছিলেন তিনি।

পৌর কাউন্সিলর মো. মানিক মিয়া ব’লেন, ধারণা করা হচ্ছে ওই ছে’লেটি মা’নসিক স’মস্যা রয়েছে। ছেলের প’রিবারকে খবর দেওয়া হয়েছে।

আ’খাউড়া উ’পজে’লা প্রা’ণিসম্পদ ক’র্মকর্তা মো. কামাল বাশার বলেন, লোক পা’ঠানো হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে মা’নষিক স’মস্যার কারণে এই ঘ’টনা ঘ’টিয়েছে। তাকে দ্রুত চি’কিৎসা নেওয়া প্র’য়োজন।