মা-বাবার ভালোবাসায় ভাগ বসানোয় মিমকে হ’ত্যা করে বড় ভাই

বনানীর কড়াইল বস্তিতে চার বছরের শি’শু নুসরাত জাহান মিম হ’ত্যায় জ’ড়িত একমাত্র আ’সামি মিমের বড় ভাই আল-আমিনকে (১৪) জিজ্ঞাসাবাদ শেষে গ্রে’ফতার করেছে র‌্যা’­ব। বাবা-মায়ের ভালোবাসায় ভাগ বসানোয় মিমকে হ’ত্যা করা হয় বলে স্বীকার করেছে আল-আমিন।

মিমের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, বুধবার (২৩ সেপ্টেম্বর) সকালে মিম বাসায় ঘুমিয়ে ছিল। মা রোকসানা কাজে বেরিয়ে গেলে মে’য়ে ও ছে’লে আল‌-আমিনকে বাসায় রেখে বের হন বাবা লিটন। ১০ মিনিট পর বাসায় এসে মিমকে খুঁজে পাননি। এরপর থেকে তারা খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। এলাকায় করা হয় মাইকিংও। একঘণ্টা পর বাসার পাশের গোসলখানায় মে’য়ের লা’শ দেখতে পান তারা।

পরিবারের দাবি, শ্বা’সরোধে মিমকে হ’ত্যা করা হয়।খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে লা’শ উ’দ্ধার করে ময়নাত’দন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজে হাসপাতা’লের ম’র্গে পাঠানো হয়।

এ সময় নিহহ মিমের বড় ভাই ১৪ বছরের আল-আমিনসহ প্রতিবেশী আরও একজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যায় র‌্যা’­ব।বনানী থা’নার উপ-পরিদর্শক জাহিদুল ইস’লাম জানান, শি’শুটির মুখে ও গলায় লালচে দাগ ছিল। এ ঘটনায় ত’দন্ত অব্যাহত রয়েছে।