মাটি কে’টে ছে’লেকে ডাক্তার বানাচ্ছেন মা

ছে’লেকে ডাক্তার বানাচ্ছেন মা- দেশের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে সংগ্রামী, সা’হ’সী ও সফল নারীদের জীবন কাহিনী। এদের মধ্যে বেশিরভাগই রয়েছে আমাদের অজানা। তেমনি এক সংগ্রামী নারী ম’র্জিনা বেগম। এই মা রাস্তার পাশের ডোবা নালা থেকে মাটি কে’টে রাস্তা ভরাটের কাজ করে তার সন্তানকে পড়াচ্ছেন মেডিকেল কলেজে।

১৭ বছর আগে দুই শি’শু সন্তান রেখে ম’র্জিনা বেগমের স্বামী মা’রা যান। এরপর থেকেই শুরু হয় তার জীবনযু’দ্ধ। সংসারের হাল ধরতে কখনো অন্যের বাড়িতে, কখনো আবার কাজ করেছেন ফসলের মাঠে। এখনও ম’র্জিনা বেগম কেয়ার বাংলাদেশের হয়ে ইউনিয়ন পরিষদের একজন তালিকাভুক্ত মাটিকা’টা শ্রমিক হিসেবে কাজ করছেন। কিন্তু এই সংগ্রামী নারী তার ছে’লেকে বানাচ্ছেন এমবিবিএস ডাক্তার।

ছে’লে রিপন বিশ্বা’স ঢাকার একটি মেডিকেল কলেজের শেষ বর্ষের ছাত্র। এবং মে’য়ে সুরমা আক্তার এইচএসসি পরীক্ষার্থী। তাকেও আইনজীবী বানাতে চান ম’র্জিনা বেগম। মানিকগঞ্জের শি’বালয় উপজে’লার আরুয়া ইউনিয়নের পাড়-বাউলিকান্দা গ্রামে ম’র্জিনা বেগমের বাড়ি।তার স্বামীর নাম লালন বিশ্বা’স ছিলেন পেশায় কাঠমিস্ত্রি। ১৭ বছর আগে ম’র্জিনা বেগমের স্বামী কাজের সন্ধানে ঢাকায় গিয়ে আর বাড়ি ফিরেননি।পরে লোক মা’রফত জানতে পারেন তিনি মা’রা গেছেন। তখন ছে’লে রিপনের বয়স মাত্র ৫ বছর। আর মে’য়ে সুরমা’র বয়স দেড় বছর। ম’র্জিনার তখন থাকার মতো স্বামীর ব্যক্তিগত কোনো জায়গা জমি এমনকি ভিটে-বাড়িও ছিল না। তাই বাধ্য হয়ে বাবার বাড়িতে চলে আসেন। ভাইয়ের সঙ্গে একটি ছাপড়া ঘর তুলে ছে’লে-মে’য়ে নিয়ে এতো বছর ধরে বসবাস করছেন ম’র্জিনা বেগম।

সরেজমিনে বাউলিকান্দা গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, ম’র্জিনা বেগম কয়েকজন নারী শ্রমিকের সঙ্গে একটি কাঁচা রাস্তা সংস্কারের কাজ করছেন। তপ্ত রোদে কোদাল চালাতে গিয়ে যেন ক্লান্ত তার দেহ। আঁচলে কপালের ঘাম মুছতে মুছতে ম’র্জিনা বেগম জানালেন, স্বামী মা’রা যাওয়ার পর দুই সন্তান নিয়ে চোখে মুখে অন্ধকার দেখেছি।সন্তানদের মুখে দু’বেলা দু’মুঠো ভাত জোটাতে মানুষের বাড়িতে বাড়িতে ঝিয়ের কাজ করেছি। কৃষি শ্রমিক হিসেবে অন্যের ফসলি জমিতে কাজ করেছি। ছে’লে রিপন বড় হওয়ার পর সেও আমা’র সঙ্গে কাজ করতো।

গত ৭ বছর ধরে কেয়ার বাংলাদেশের তালিকাভুক্ত মাটিকা’টা শ্রমিক তিনি। ইউনিয়ন পরিষদের অধীনে রাস্তা তৈরি আর সংস্কার করাই তাদের কাজ।ম’র্জিনা বেগম জানান, অনেক অভাবের মধ্যে দুই ছে’লে-মে’য়ের লেখাপড়া করানোর কারণে আত্মীয়-স্বজন আর প্রতিবেশীরা বাঁকা চোখে দেখতো। তাদের লেখাপড়া বন্ধ করে দিয়ে কাজে লাগানোর পরাম’র্শ দিয়েছেন অনেকে। কিন্তু ছে’লের একের পর এক ভালো রেজাল্ট করায় পরে সবাই খুশি হয়েছেন। আর আমা’র ছে’লে পড়াশোনার খরচ বহন করে এ পর্যন্ত আসার পেছনে এলাকাবাসীরাও আমাকে অনেক আর্থিক সহায়তা ও বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করেছেন।

তিনি আরও বলেন, ‘ছে’লেকে ডাক্তার বানানো আমা’র স্বপ্ন ছিল। ছে’লেও আমা’র সেই ইচ্ছাকে গুরুত্ব দিয়ে লেখাপড়া করেছে। এজন্যই আমা’র স্বপ্ন আজ পূরণ হওয়ার পথে।’ মুখে তৃপ্তির হাসি হেসে তিনি বলেন, ‘আজ আর আমা’র কোনো ক’ষ্ট নেই। আমি সব ক’ষ্টের কথা ভুলে গেছি। ছে’লে ডাক্তার হচ্ছে, গরিব দুখীর সেবা করতে পারবে। মে’য়েকে উকিল বানাবো, যেন সেও গরিব-দুখী মানুষকে আইনি সেবা দিতে পারে।’

ম’র্জিনা বেগমের ছে’লে রিপন বিশ্বা’স হরিরামপুরের ভাদিয়াখোলা ফিরোজা আর্দশ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি এবং ঢাকা আইডিয়াল কলেজ থেকে জিপিএ ৫ পেয়ে এইচএসসি পাস করেন। এর আগে পঞ্চ’ম ও অষ্টম শ্রেণিতে রিপন বৃত্তি লাভ করেন।মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য সমাজের বিভিন্ন ক’র্তা ব্যক্তিদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছেন রিপন। পরে মানিকগঞ্জ-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য এবিএম আনোয়ারুল হকের মাধ্যমে শিক্ষামন্ত্রীর কাছে যান তিনি। তার সুপারিশেই ঢাকার গ্রিন লাইফ মেডিকেল কলেজে দরিদ্র কোটায় ভর্তির সুযোগ পান রিপন। বর্তমানে তিনি এমবিবিএসের শেষ বর্ষের ছাত্র।

২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টের অধীনে সারাদেশের ৫ জন মেডিকেল শিক্ষার্থীদের যে শিক্ষাবৃত্তি দিয়েছিলেন রিপন বিশ্বা’সও তাদের একজন। মাসিক ২০০০ টাকা করে প্রধানমন্ত্রীর সেই বৃত্তির টাকা এখনও পাচ্ছেন রিপন।রিপন বিশ্বা’স জানান, আমা’র মা মাটি কে’টে আমাদের মানুষ করেছেন। আমা’র মায়ের মতো এতো পরিশ্রম ও মনের জো’র থাকলে ডাক্তার কেন দেশের প্রধানমন্ত্রী হওয়া সম্ভব। রিপনের স্বপ্ন ডাক্তার হয়ে গ্রামে মায়ের নামে একটি হাসপাতাল গড়ে তুলবেন। যেখানে এলাকার গরিব রোগীদের বিনামূল্যে চিকিৎসা দেয়া হবে। তিনি আরও বলেন, ‘আমা’র মায়ের স্বপ্ন আমা’র বোনকে আইনজীবী বানানো। সেই স্বপ্ন পূরণে বোনকেও অনুপ্রেরণা দিয়ে যাচ্ছি।’

রিপনের স্কুলশিক্ষক রানা হামিদ ছিতাপ জানান, রিপন ছোটবেলা থেকেই আমা’র ছাত্র। ওকে আমি অ আ ক খ থেকে পড়াশোনা করিয়েছি। সে অ’ত্যন্ত মেধাবী ও পরিশ্রমী ছে’লে। আর ছে’লে-মে’য়ের লেখাপড়ার জন্য ম’র্জিনা বেগম যে অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন তা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়।নিজে দিন মজুরি করেছেন, প্রতিবেশী ও ধনাঢ্য ব্যক্তিদের সহযোগিতার জন্য সার্বক্ষণিক চেষ্টা করেছেন। রিপন এখন আমাদের গর্ব। ভবিষ্যতে সে দেশের মঙ্গল বয়ে আনবে। তার মতো ছাত্র পেয়ে আমি ধন্য। ঘরে ঘরে যেন এমন সোনার টুকরা ছে’লে বারবার জন্ম নেয়।

অর্থনৈতিক স্বচ্ছলতার মধ্যে নয়, একজন মাটিকা’টা নারী শ্রমিক ছে’লেকে ডাক্তার বানাচ্ছেন। ম’র্জিনা বেগমের এই সংগ্রামী গল্প এখন এলাকার সবার মুখে মুখে। ২০১৩ সালে আন্তর্জাতিক নারী নি’র্যা’ত’ন প্রতিরোধ পক্ষ ও বেগম রোকেয়া দিবস উপলক্ষে মহিলা ও শি’শু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ‘‘জয়িতা অন্বেষণে বাংলাদেশ’’ কার্যক্রমের আওতায় সফল জননী নারী’ ক্যাটাগরিতে বিভাগীয় ও জে’লা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ জয়িতা নির্বাচিত হয়েছিলেন ম’র্জিনা বেগম।