আটক ও গুম নেতাকর্মীদের বাসায় গিয়ে ইশরাকের সান্ত্বনা

বিভিন্ন সময় গুম হওয়া বিএনপি, ছাত্রদল ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের বাসা গিয়ে তার পরিবারের খোঁজ খবর নিয়েছেন বিএনপি নেতা ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন।

শুক্রবার ঈদের নামাজ শেষে রাজধানীর পুরান ঢাকাসহ বিভিন্নস্থান থেকে বিভিন্ন সময় গুমের শিকার হওয়া ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের বসায় গিয়ে তাদের পরিবারের সাথে দেখা করেন তিনি। এ সময়, গুম হওয়া নেতাকর্মীদের পরিবারের সার্বিক খোঁজ খবর নেন তিনি।

রাজধানীর সূত্রাপুর থানা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি সেলিম রেজা পিন্টুর বাসায় গেলে সেখানে এক হৃদ়বিদারক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক কে দেখে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন পিন্টুর মা। এ সময়, কাদতে কাদতে পিন্টুকে অবিলম্বে ফিরিয়ে পাওয়ার আকুতি জানান পিন্টুর মা।

২০১৩ সালে রাজধানী থেকে গুমের শিকার হন তৎকালীন সূত্রাপুর ছাত্রদলের সভাপতি সেলিম রেজা পিন্টু। তারপর থেকেই সরকারসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় পিন্টুকে ফিরিয়ে পাওয়ার আকুতি জানিয়ে এসেছেন পরিবারটি।এরপর সদ্য কারাবন্দি হওয়া স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সভাপতি এবিএম পারভেজ রেজার বাসায় গিয়ে তার পরিবারের সার্বিক খোঁজ খবর নেন।এসময়, পারভেজ রেজার মাকে শান্তনা দেন তিনি। সেখান থেকে বংশাল থানা ছাত্রদলের সদ্য কারাবন্দি সাবেক সাধারণ সম্পাদক রাশেদের বাসায়ও যান তিনি।

পরে দীর্ঘদিন ধরে কারাবন্দি সাবেক ছাত্রদল নেতা এসহাক সরকারের বংশালের বাসায় যান ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন। সেখানে তার পরিবারের লোকজনের সাথে কথা বলেন তিনি। সেইসাথে ইসহাক সরকারের মত একজন ছাত্র নেতা কে দীর্ঘদিন ধরে কারাবন্দি রাখায় সরকারের কঠোর সমালোচনা করেন। সমবেদনা প্রকাশ করেন পরিবারের প্রতি।

এরপর ২০১৩ সালে বংশালের একই ওয়ার্ড (৩৫ নং ওয়ার্ড) থেকে গুম হওয়া ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি জহির উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক চঞ্চল, সিনিয়র সহ সভাপতি মো:সোহেল এবং সাংগঠনিক সম্পাদকের বাসায় গিয়ে তার পরিবারের লোকজনের খোঁজখবর নেন বিএনপি নেতা ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন। আগে তার বাবা অবিভক্ত ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার কবর জিয়ারত করেন তিনি।