‘শনিবার সারপ্রাইজে’ মুখোমুখি হয়ে যা বললেন তাহসান-মিথিলা

তাহসান-মিথিলার ‘শনিবার সারপ্রাইজ’ রহস্যের জট খুলেছিল শনিবারই। সেটি হলো – বিচ্ছেদের পর এই প্রথম মুখোমুখি বসতে যাচ্ছেন এই দুই তারকা। কথা বলবেন জীবনের নানা বিষয় নিয়ে।

রহস্য উন্মোচনের পরেও যে রহস্য থেকেই গিয়েছিল। সংসার জীবন বিচ্ছেদের লম্বা বিরতির পর নতুনকরে দু’জনে মুখোমুখি বসে কী আলাপ করবেন? এমন কৌতূহল ছিল ভক্ত-অনুরাগীদের মাঝে। এবার সেই কৌতূহলও মিটিয়ে দিলেন এ সাবেক তারকা দম্পতি। ই-কমার্স সাইট ইভ্যালির ফেসবুক পেজ থেকে লাইভ সম্প্রচারে শনিবার মুখোমুখি হলেন তাহসান-মিথিলা। জানালেন সেই সারপ্রাইজের বিষয়ে।

তাহসান বললেন, সেলিব্রেটি হওয়ার কারণে সোশ্যাল মিডিয়ায় যে বুলিংয়ের শিকার হন তারা সে বিষয়ে কথা বলতে এসেছেন। সম্প্রতি অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরীর সঙ্গে হয়ে যাওয়া সাইবার হয়রানির উদাহরণও টানেন এ শিল্পী।

তিনি জানান, ফেসবুকে তার চেয়ে বেশি বাজে মন্তব্য ও বুলিংয়ের শিকার হচ্ছেন মিথিলা। তাদের বিচ্ছেদ ও বর্তমান জীবনের প্রসঙ্গ টেনে এনে নেতিবাচক মন্তব্য করেন অনেকে। অবশ্য ভক্ত-অনুরাগীরা কখনোই এসব করেন না বলে জানান তাহসান।

লাইভে তাহসানের মুখোমুখি হয়ে মিথিলা বলেন, ‘এখানে আমি কিছু ভালো বিষয় প্রমোট করতে এসেছি। কারণ, আমাদের সবাইকে নিয়েই ভালো থাকতে হবে। অনুরোধ করবো, আমরা খারাপ কিছু বলবো না। খারাপ কিছু শুনবোও না। আমাদের ভেতরে পজিটিভিটির চর্চা করা খুব দরকার।’

মিথিলার এমন বক্তব্যের পর তাহসান বলেন, ‘আমি যখন স্ট্যাটাস দিলাম যে, একটা সারপ্রাইজ আছে। ও (মিথিলা) রিপ্লাই দিল। তখন চারিদিক থেকে মন্তব্যের ঝড়। আমি ভাগ্যবান, আমার পেজে অনেক ভালো ভালো মন্তব্য আসে। কিন্তু তার মাঝেও প্রতিনিয়ত প্রত্যেক স্ট্যাটাসে ওকে (মিথিলা) নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্য থাকে। আমার ভক্ত-শুভাকাঙ্খীরা তারা ভালো মন্তব্য করেন। কিন্তু কিছু মানুষ আছেন তারা প্রতিনিয়ত নেতিবাচক মন্তব্য ছড়াতে ভালোবাসেন। পাঁচ বছর হয়ে গেছে আমাদের বিচ্ছেদ হয়েছে।

সঙ্গত কারণেই আমরা একসঙ্গে কাজ করছি না। কিন্তু এখনও প্রতিনিয়ত আমার পোস্টে তাকে (মিথিলা) বুলি করা হয়। তার পোস্টে আমাকে নিয়ে হয়ত ট্যাগ করা হয়। যারা এসব করেন তাদের নিয়ে আমরা কথা বলি না দেখে বিষয়টা বেড়ে এমন একটা পর্যায়ে পৌঁছে গেছে যে, আমরা গত সপ্তাহে দেখলাম, চঞ্চল চৌধুরীর মতো একজন গুণী শিল্পী তার মাকে নিয়ে পোস্ট করেছেন সেখানেও কত নেতিবাচক মন্তব্যের ছড়াছড়ি।’

এরপর তাহসান বলেন, ‘এটা শুধু আমার বা মিথিলার বা চঞ্চলের পেজে না যে কোনো ব্র্যান্ড, যে কোনো সম্মানিত মানুষের বেলায় ঘটছে। বিষয়টা মানসিক ব্যধিতে রূপান্তরিত হয়েছে। আমরা যারা সেলিব্রেটি তারা এ নিয়ে কথা না বললে প্রজন্ম বুঝবে না যে, কাউকে নিয়ে গালাগালি করা, কটূ কথা বলা এর মাঝে বীরত্ব নেই। এতে আমারই পারিবারিক শিক্ষার কদর্য প্রকাশ পায়। এটা নিয়ে আমাদেরই কথা বলতে হবে। আর এই সুযোগটা আজকে আছে। কারণ আমাদেরকে একসঙ্গে যেহেতু মানুষ এক্সপেক্ট করবে না, তাই লাইভটি বেশি মানুষ দেখবে।

তাই এই লাইভের মাধ্যমে আমরা একটা সারপ্রাইজ গিফট তো দিচ্ছি। কিন্তু আরেকটা সারপ্রাইজ হচ্ছে, আমরা যে বার্তা দিচ্ছি- আমরা (তাহসান -মিথিলা) আলাদা হয়ে গেছি, কিন্ত আমরা সম্মানে পাশাপাশি বসে কথা বলতে পারি। একে অপরকে কটূ কথা না বলে সম্মানের সঙ্গে আলোচনা করতে পারি। এটা থেকেই যেন পরবর্তী প্রজন্ম শিখতে পারে যে, কারো সঙ্গে তোমার মতের মিল না থাকলেও তার সঙ্গে বসে সম্মানের সহিত কথা বলা যায়। তার সঙ্গে কোনোদিনই কদর্য কথা বলতে হবে না।

আমার কথা সহজ যে, পৃথিবীতে নেতিবাচক অনেক কিছু আছে, সেগুলো বাদ দিয়ে ইতিবাচক চর্চা করতে হবে। এটাই হচ্ছে সারপ্রাইজ।’এটা অবশ্যই সারপ্রাইজ। আমরা দু’জনেই আলাদা, কিন্তু পাশাপাশি বসে শ্রদ্ধার সঙ্গে কথা বলতে পারছি। মতাদর্শ ভিন্ন হলেও যে একে অপরকে সম্মান করা যায়- এই বার্তাটাই দিতে চেয়েছি।’

উল্লেখ্য, লাইভ অনুষ্ঠানটির বিষয়ে এর আগে শনিবার ইভ্যালির প্রধান বিপণন কর্মকর্তা (সিএমও) আরিফ আর হোসেন জানিয়েছিলেন, তাহসানের পর ইভ্যালির দ্বিতীয় ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হতে যাচ্ছেন রাফিয়াথ রশিদ মিথিলা। সেই উপলক্ষে এই আয়োজন। এর আগে বুধবার মধ্যরাতে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে ঝড় তুলেছিলেন তাহসান।

তাহসান তার ভেরিফায়েড পেজে লেখেন, ‘এই শনিবার রাতে তোমার জন্য একটি সারপ্রাইজ রয়েছে।’তাহসানের এই পোস্টের জবাবে পাল্টা পোস্ট করেন মিথিলা। লেখেন, রিয়েলি!!? সারপ্রাইজের অপেক্ষায় রইলাম।’ব্যস দুই তারকার অমন স্ট্যাটাসকে জোড়া লাগিয়ে ফেসবুকে তোলপাড় শুরু হয়। মন্তব্যের ঘরে নানাবিধ প্রশ্ন জমা পড়তে থাকে।

মিথিলা-সৃজিতের চলমান সুসম্পর্কটাকে সচল রয়েছে কি না সন্দেহ করেন অনেকে। দুই তারকার ভক্তদের অনেকে আশায় বুক বাঁধেন – আবার বুঝি দু’জনে এক হতে চলেছেন! শনিবারেই সেই ঘোষণা আসবে! কেউ কেউ জানতে চান, ফের বিয়ে করতে চলেছেন কি না।

আবার কেউ কেউ শুভকামনা জানিয়ে বলেন, নিশ্চয়ই দুর্দান্ত কোনো চমক আসছে। মিথিলার অনুসারীরা তার পোস্টের মন্তব্যে লেখেন, তাহলে আপনাদের মধ্যে যোগাযোগ রয়েছে। নেটিজেনদের এসব প্রশ্নে জবাবে ফিরতি কোনো স্ট্যাটাস দেননি তাহসান- মিথিলা। গণমাধ্যমেও এ বিষয়ে মুখ খোলেননি তখন।

অবশেষে শনিবার লাইভে মুখোমুখি বসে কী সেই সারপ্রাইজ তার বিস্তারিত জানালেন তাহসান-মিথিলা।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে ভারতের নন্দিত নির্মাতা সৃজিত মুখার্জির সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধেন ঢাকার গায়িকা-অভিনেত্রী মিথিলা। বিপরীতে তাহসান এখনও সিঙ্গেলই আছেন।