জান্নাত মানুষের শেষ ও চিরস্থায়ী বাসস্থান

দুনিয়ার জীবনই শেষ কথা নয়। এ জীবনের পরেই শুরু হবে পরকালের চিরস্থায়ী জীবন। যে জীবনের শুরু আছে শেষ নেই। জান্নাত জাহান্নাম লাভ নির্ভর করে জীবদ্দশায় মানুষের কর্মের উপর। কর্মগুণে কেউ বাস করবে জান্নাতের শীতল ছায়ায়।

আবার মন্দ কর্মের কারণে অনেক মানুষকে থাকতে হবে জাহান্নামের আগুনের মধ্যে। মানুষের জান্নাতে যাওয়ার পথে যেসব কাজ প্রধান অন্তরায় সেসব কাজের বিবরণ তুলে ধরেছেন স্বয়ং রাসূল (সা.), যা প্রত্যেক ঈমানদার মুমিন মুসলমানের এড়িয়ে চলা উচিত। জান্নাতের পথে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবে যেসব কাজ, সেগুলো হলো-

আল্লাহকে অবিশ্বাস করা: জান্নাত লাভের প্রথম ও প্রধান শর্ত হলো মহান আল্লাহর প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করা। কেননা রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘ঈমানদার ব্যতীত কেউ জান্নাতে প্রবেশ করবে না।’ (বুখারি ও মুসলিম)

তিনি আরও বলেন, ‘ঈমান না আনা পর্যন্ত তোমরা জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবেন না’ (মুসলিম) অহংকারী ব্যক্তি: রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যার অন্তরে অণু পরিমাণ অহংকার রয়েছে সে জান্নাতে প্রবেপ্রতিবেশীর প্রতি সদয় না হওয়া: রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যার অনিষ্ট থেকে তার প্রতিবেশী নিরাপদ থাকে না সে জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবে না।’ (মুসলিম)

পরনিন্দাকারী: রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘চোগলখোর বা পরনিন্দাকারী ব্যক্তি জান্নাতে প্রবেশ করবে না।’ (মুসলিম) তিনি আরও বলেছেন, ‘কেয়ামতের দিন সবচেয়ে খারাপ লোকদের দলভুক্ত হিসেবে ঐ ব্যক্তিকে দেখতে পাবে যে, যে ছিল দুমুখো-

যে এক জনের কাছে এক কথা আরেক জনের কাছে ভিন্ন কথা নিয়ে হাজির হতো।’(মুসলিম) আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্নকারী: রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্নকারী জান্নাতে প্রবেশ করবে না।’ (মুসলিম)শ করবে না।’ (মুসলিম)