মানসিক হাসপাতালে নোবেল, কাছে পেয়ে উচ্ছ্বসিত অসুস্থ তরুণরা (ভিডিও)

সোশ্যাল মিডিয়ায় একের পর এক বিতর্কিত স্ট্যাটাস, মন্তব্যর জন্য আলোচনায় থাকা কণ্ঠশিল্পী মাঈনুল আহসান নোবেলের দেখা মিলল এবার একটি মানসিক হাসপাতালে। তবে কী কারণে বা কোন মানসিক হাসপাতালে গিয়েছেন সে সম্পর্কে কিছুই জানা যায়নি। নোবেলম্যান পেইজ থেকে একটিও ভিডিও ফেসবুক পেইজে আপলোড করা হয়েছে। ভিডিওর ক্যাপশনে লেখা হয়েছে নোবেলম্যানের জাতীয় সংগীত পরিবেশনা।

ওই ভিডিওতে দেখা যায় নোবেল মানসিকভাবে অসুস্থ একদল তরুণকে জাতীয় সংগীত গাওয়াচ্ছেন। প্রথমে তিনি গাইছেন, পরে তার সঙ্গে সুর মিলিয়ে বাকিরা গাইছেন। নোবেলকে পেয়ে মানসিক রোগীরা বেশ আনন্দিত হয়েছেন ও সহজেই অনুসরণ করছিলেন নোবেলকে।

নোবেল কোন হাসপাতালে গিয়েছিলেন সেটা জানা যায়নি, যদিও নেটিজেনরা অনেকেই বলছেন এটা পাবনার মানসিক হাসপাতাল। নোবেল অবশ্য গতকাল এক পোস্টে লিখেছেন, ‘সকল সাংবাদিক ভাইবোনদের কাছে অত্যন্ত বিনয়ের সাথে ক্ষমা চাই ও আমার পোস্টের মাধ্যম যারা কষ্ট পেয়েছেন তাদের কাছে দুঃক্ষ প্রকাশ করি। আমি এই মুহূর্তে আমার মানসিক ও শারীরিক বিচ্যুতি নিয়ে কন্সার্নড। আমার পরিবারের সমর্থনে আমি চিকিৎসা গ্রহণ করছি ও আল্লাহর রহমতে শীঘ্রই সুস্থ হয়ে নতুন গান নিয়ে ফিরে আসবো।’

নোবেলের চোখের চশমা, কাঁধে ঝোলানো ব্যাগ আর সঙ্গে স্ত্রীকে দেখে নেটিজেনরা বলছেন সাম্প্রতিক সময়ের জটিলতা থেকে উত্তরণের জন্যই পাবনায় গেছেন। ভিডিওতে আরো স্পষ্ট যে সেখানে নোবেল খুবই স্বাভাবিক আচরণ করছেন যা তার ফেসবুক আচরণের বহির্ভূত।

ভারতের একটি রিয়িলিটি মিউজিক শো থেকে উঠে আসেন সংগীতশিল্পী মাইনুল আহসান নোবেল। বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের জন্য এই শিল্পীকে ঘিরে আলোচনা-সমালোচনা থামছেই না। এর আগে গতকাল (১৯ মে) দিনভর পুলিশের সাইবার ইউনিটের মুখোমুখি ছিলেন নোবেল। নিজের সকল দায় স্বীকার করেন। পোস্ট দিয়ে সবার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন।

বুধবার (১৯ মে) দুপুরের দিকে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের সাইবার ক্রাইম ডিভিশন তাকে ডেকেছিল। পরে তিনি ডিএমপি সদর দফতরে এসে ডিএমপির সাইবার সিকিউরিটি ও ক্রাইম ইউনিটের পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে দেখা করেন। এই ইউনিটের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার নাজমুল ইসলাম তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন।

একইদিন তিনি এক স্ট্যাটাসে বলেন, ‘গায়ক নোবেল ও তার ভেরিফায়েড পেজের আপত্তিকর ও অনভিপ্রেত পোস্ট নিয়ে আমরা ইতোমধ্যে অবগত। বাংলাদেশের প্রচলিত আইন মোতাবেক ও সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গের সাথে মতামত, সম্মতি ও পরামর্শক্রমে এই বিষয়ের একটা বিশ্বাসযোগ্য ও স্থায়ী সমাধানের জন্য আমরা আইনের আলোকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করছি।’

নোবেল আরেকটি পোস্টে গতকালই জানান, পুলিশের সঙ্গে সাক্ষাতের পর তার মানসিক চিকিৎসা চলছে। ধারণা করা হচ্ছে, সেই সূত্রেই বৃহস্পতিবার (২০ মে) সকাল নাগাদ নোবেল গিয়েছেন ঐ মানসিক হাসপাতালে।