প্রথম ওভারেই মোস্তাফিজের সাফল্য

করোনায় আইপিএল বন্ধ হওয়ার আগে ভারতীয় এই ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করে বিশ্বের নজর কাড়েন রাজস্থান রয়েলসের তারকা পেসার মোস্তাফিজুর রহমান। শ্রীলংকার বিপক্ষে ঘরের মাঠে হোম সিরিজ শুরুর আগে মোস্তাফিজের কাছে আইপিএলের সেই পারফরম্যান্সটাই প্রত্যাশা করেছিলেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক তামিম ইকবাল।

তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে রোববার বল হাতে পেয়েই দলকে আস্থার প্রতিদান দেন কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমান। প্রথম ওভারে বোলিং এসেই চতুর্থ বলে লংকান টপঅর্ডার ব্যাটসম্যান পাথুম নিশাঙ্কাকে ক্যাচ তুলতে বাধ্য করেন তিনি।

মোস্তাফিজের শিকারে পরিনত হওয়ার আগে ১৩ বলে ৮ রান করেন লংকান এ তারকা ব্যাটসম্যান। তার বিদায়ের মধ্য দিয়ে ৭.৪ ওভারে ৪১ রানে ২ উইকেট হারায় শ্রীলংকা। ২৫৮ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে দলীয় ৩০ রানে মেহেদী হাসান মিরাজের অফ স্পিনে বিভ্রান্ত হয়ে ফেরেন ওপেনার ধনঞ্জয়া ডি সিলভা।

রোববার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমেই বিপদে পড়ে যায় তামিম ইকবালের নেতৃত্বাধীন দলটি।স্কোর বোর্ডে মাত্র ৫ রান যোগ হতেই উইকেট হারান লিটন দাস। রানের খাতা খুলার আগেই ফেরেন এই ওপেনার।

তিনে ব্যাটিংয়ে নেমে টেস্টের স্টাইলে ব্যাটিং করে ৩৪ বলে মাত্র ১৫ রান করে ফেরেন সাকিব আল হাসান। দলীয় ৪৩ রানে ফেরেন তিনি। ইনিংসের শুরু থেকে দায়িত্বশীল ব্যাটিং করে যাওয়া তামিম ইকবাল ফেরেন ফিফটি পূর্ণ করে। ৭০ বলে ৫২ রান করে আউট হন বাংলাদেশ দলের এই অধিনায়ক।

এরপর ব্যাটিংয়ে নেমে কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই সাজঘরে ফেরেন মোহাম্মদ মিঠুন। ডি সিলভার বলে এলবিডব্লিউ হয়ে ফেরেন তিনি। ৯৯ রানে প্রথমসারির ৪ ব্যাটসম্যানের বিদায়ের পর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে সঙ্গে নিয়ে দলের হাল ধরেন মুশফিকুর রহিম। পঞ্চম উইকেটে তারা গড়েন ১০৯ রানের জুটি।

ফিফটির পর সেঞ্চুরির পথে হাঁটা মুশফিক শেষ পর্যন্ত আক্ষেপ নিয়েই মাঠ ছাড়েন। মাত্র ১৬ রানের জন্য ওয়ানডে ক্যারিয়ারের অষ্টম সেঞ্চুরি মিস করেন তিনি। সাজঘরে ফেরার আগে ৮৭ বলে ৪টি চার ও এক ছক্কায় ৮৪ রান করে দলীয় ২০৮ রানে আউট হন জাতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক।

মুশফিক আউট হওয়ার পর ৭০তম বলে ওয়ানডে ক্রিকেটে ২৪তম ফিফটি পূর্ণ করেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ফিফটির পর নিজের ইনিংসটা আর লম্বা করতে পারেননি এই তারকা অলরাউন্ডার ক্রিকেটার; ফেরেন ৭৬ বলে দুই চার ও এক ছক্কায় ৫৪ রান করে।

শেষদিকে আফিফ হোসেনের ২২ বলের অপরাজিত ২৭ আর মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের ৯ বলের ১৩ রানের সুবাদে ৬ উইকেটে ২৫৭ রান করতে সক্ষম হয় বাংলাদেশ দল। শ্রীলংকার হয়ে ৪৫ রান খরচ করে তিন উইকেট নেন ধনঞ্জয়া ডি সিলভা।